Categories
বিশ্ব

মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) অবমাননার ঘটনায় ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের বক্তব্য অগ্রহণযোগ্য: তুরস্ক

মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) অবমাননার ঘটনায় ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের বক্তব্য অগ্রহণযোগ্য: তুরস্ক

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: মহানবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-কে নিয়ে ফ্রান্সের ‘শার্লি এবদো’ পত্রিকায় ব্যঙ্গাত্মক কার্টুন প্রকাশের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে তুরস্ক।

তুর্কি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হামি একসয় বলেছেন, ‘শার্লি এবদো’ ম্যাগাজিনের উসকানিমূলক পদক্ষেপের বিষয়ে ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রন যে ব্যাখ্যা দিচ্ছেন তা পুরোপুরি অগ্রহণযোগ্য। খবর পার্সটুডে’র।

তুর্কি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, গণমাধ্যম ও বাক স্বাধীনতার কথা বলে মুসলমানদের প্রতি এ ধরণের অবমাননাকে ব্যাখ্যা করা যাবে না।

এতে বলা হয়েছে, ফ্রান্সসহ ইউরোপের ফ্যাসিস্ট ও বর্ণবাদী গোষ্ঠীগুলো মুক্তচিন্তার কথা বলে অন্যদের অধিকার লঙ্ঘন করছে এবং ইসলামভীতি ছড়িয়ে দিচ্ছে। তারা বিদ্বেষ উসকে দিচ্ছে।

গত মঙ্গলবার বিশ্ব শান্তির দূত হজরত মুহাম্মদ (সাঃ) কে নিয়ে আবারও ব্যঙ্গাত্মক কার্টুন প্রকাশ করেছে বিতর্কিত ফরাসি ম্যাগাজিন শার্লি এবদো। হযরত মুহাম্মদ (সা.)-কে নিয়ে ২০১৫ সালে যে কার্টুনগুলো প্রকাশ করেছিল সেগুলোই আবার প্রকাশ করেছে তারা।

বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে, ম্যাগাজিন শার্লি এবদো’র সবশেষ সংস্করণের প্রচ্ছদে মহানবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-কে ব্যঙ্গ করে আঁকা ১২টি কার্টুন ছাপা হয়েছে।

Categories
দেশ

শুধু আমার একাউন্ট কেন? সব দলের সব নেতাদের উস্কানিমূলক বক্তব্য বন্ধে ব্যবস্থা নিক ফেসবুক: দাবি বিজেপি বিধায়কের

শুধু আমার একাউন্ট কেন? সব দলের সব নেতাদের উস্কানিমূলক বক্তব্য বন্ধে ব্যবস্থা নিক ফেসবুক: দাবি বিজেপি বিধায়কের

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: ফেসবুক কর্তৃপক্ষ তাঁর অ্যাকাউন্টটি নিষিদ্ধ করে দিয়েছে বলে ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে বেরনো খবরের প্রতিক্রিয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করে তেলঙ্গানার বিজেপি বিধায়ক টি রাজা সিংহ দাবি করলেন, তাহলে অন্য দলগুলির যে নেতারা উসকানিমূলক ভাষণ দেন, তাঁদের সোস্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টেও নিষেধাজ্ঞা জারি হওয়া উচিত। তিনি বলেছেন, আমি খবর পেয়েছি, ফেসবুক আমার নামে সব পেজ, অ্য়াকাউন্ট সরিয়ে দিয়েছে। আর সব দলেরও অনেক নেতা প্ররোচনামূলক বক্তৃতা দেন। ফেসবুকের তাঁদের অ্যাকাউন্টগুলিও নিষিদ্ধ করা উচিত।

আমি আমার অফিসিয়াল ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য ফেসবুককে লিখিত ভাবে জানাব। ফেসবুকের এক মুখপাত্র বলেছেন, যাঁরা হিংসা, ঘৃণা ছড়ান বা তার প্রচার করেন, তাঁদের আমাদের মঞ্চে জায়গা না দেওয়ার পলিসি মেনে আমরা রাজা সিংহকে ফেসবুকে নিষিদ্ধ করেছি। সম্ভাব্য নীতি লঙ্ঘনকারীদের মূল্য়ায়নের প্রক্রিয়াটি অত্যন্ত ব্যাপক, আমাদের তাঁর অ্যাকাউন্টটি সরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত সেটা থেকেই।

গত ১৪ আগস্ট ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে প্রকাশিত এক রিপোর্টে দাবি করা হয়, ফেসবুক বিজেপি নেতা-মন্ত্রীদের ঘৃণাবিদ্বেষ, প্ররোচনামূলক বক্তব্য়ের ক্ষেত্রে নরম মনোভাব দেখাচ্ছে। এ নিয়ে জোর বিতর্ক মাথাচাড়া দেয়। রিপোর্টে অজ্ঞাতপরিচয় ফেসবুকেরই ভিতরের লোকজনের সাক্ষাত্কারের উল্লেখ করে দাবি করা হয়, কোম্পানির ভারত সংক্রান্ত সিনিয়র পলিসি এক্সিকিউটিভ আঁখি দাশ রাজা সিংয়ের ওপর যাতে নিষেধাজ্ঞা না জারি হয়, সেজন্য সংস্থার অভ্যন্তরীণ কনটেন্ট রিভিউ প্রক্রিয়ায় হস্তক্ষেপ করেছেন।

রাজার একাধিক পোস্টের নিশানা ছিল মুসলিম সম্প্রদায়। কিন্তু আঁখি নাকি সংস্থার কর্মীদের বোঝান, বিজেপি নেতাদের বিরুদ্ধে এমন কারণে শাস্তিমূলক পদক্ষেপ করা হলে ভারতে কোম্পানির ব্যবসায়িক স্বার্থ মার খাবে। এদিকে বিজেপির আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্য সরাসরি রাজাকে ফেসবুকে নিষিদ্ধ করা নিয়ে কিছু না বললেও দেশের নীতি-নিয়ম মেনেই ঘৃণা, বিদ্বেষমূলক ভাষণের সংজ্ঞা স্থির করা উচিত বলে অভিমত জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ভারতে ঘৃণা, বিদ্বেষমূলক ভাষণ কোনটা, সেটা ঠিক হবে আমাদের সাংবিধানিক ফ্রেমওয়ার্ক ও বিদ্যমান নিয়ম-নীতির ওপর।

রাজনৈতিক আনুগত্য নির্বিশেষে সবার ক্ষেত্রে সমান ভাবে তা প্রয়োগ করা উচিত। সনিয়া গাঁধীর বিভেদকামী ভাষণ ফেসবুকে লাইভ সম্প্রচারিত হয়েছে, তার জেরে দিল্লিতে ব্যাপক দাঙ্গা-হাঙ্গামা, মৃত্যু, ধ্বংসলীলা চলেছে। তিনিও অন্য় যে কারও মতোই সমান দোষী। দ্বিচারিতা চলতে পারে না।

Categories
রাজ্য

ডব্লিউবিসিএস গ্রুপ-সি পদের ফল প্রকাশ: মোট আসনের ২০ শতাংশ মুসলিম প্রার্থীদের দখলে

ডব্লিউবিসিএস গ্রুপ-সি পদের ফল প্রকাশ: মোট আসনের ২০ শতাংশ মুসলিম প্রার্থীদের দখলে

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: ২০১৮ সালের ডব্লিউবিসিএস (এক্সিকিউটিভ) বিভাগের গ্রুপ-সি পোষ্টের নিয়োগ প্রক্রিয়া চূড়ান্ত ফল প্রকাশিত হল। রাজ্যের বিভিন্ন সরকারি বিভাগের ৯৪টি শূন্য পদের জন্য ২০১৮ সালে এই নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়। দু’বছর পর, সফলদের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশিত হলো।

এই তালিকায় দেখা যাচ্ছে, ৯৪ আসনের মধ্যে, ১৯ জন রয়েছেন সংখ্যালঘু মুসলিম। যা শতকরা ২০.২ শতাংশ। যার মধ্যে সাধারণ ক্যাটাগরিতে সফল হয়েছেন ১০ জন। ওবিসি-এ ক্যাটাগরিতে সুযোগ পেয়েছে ৮ জন। একজন ওবিসি-বি ক্যাটাগরিতে সুযোগ পেয়েছেন।

সবথেকে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, চূড়ান্ত তালিকা দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন আব্দুল সমীর মন্ডল। প্রথম হয়েছেন শাশ্বত চৌধুরী। এদেরকে জয়েন্ট বিডিও হিসাবে নিয়োগ করা হবে।

Categories
দেশ

বাবরি মসজিদের বিকল্প জমিতে প্রথম গড়ে উঠবে হাসপাতাল: দায়িত্বে জামিয়ার স্থাপত্য বিভাগ

বাবরি মসজিদের বিকল্প জমিতে প্রথম গড়ে উঠবে হাসপাতাল: দায়িত্বে জামিয়ার স্থাপত্য বিভাগ

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: বাবরি মসজিদের বিকল্প ৫ একর জমিতে প্রথম গড়ে উঠবে হাসপাতাল, দায়িত্বে জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য বিভাগের ডিন। অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ করার রায় দিয়ে বাবরি মসজিদের জন্য বিকল্প ৫ একর জায়গা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। সেই নির্দেশ মত অযোধ্যা থেকে প্রায় ২৫ কিলোমিটার দূরে ধুন্নি গ্রামে বাবরি মসজিদের জন্য ৫ একর সুন্নি বোর্ডকে দিয়েছে উত্তরপ্রদেশ সরকার।

যে জায়গায় লোকালয় কম। ওই এলাকাটি চাষযোগ্য জমি। তবে সেখানে একটি আগে থেকেই দরগা রয়েছে। ওই জায়গাতেই মসজিদ গড়ে ওঠার কথা। তবে, মসজিদ তৈরি করার আগে ওই জায়গায় বৃহৎ মানের একটি হাসপাতাল গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সুন্নি বোর্ড। করোনা আবহে এই মুহূর্তে মানুষের কাছে চিকিৎসার পরিসেবা টায় সবথেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তাই সাধারণ মানুষের কথা ভেবে, আগে মসজিদ তৈরি না করে হাসপাতাল তৈরি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সুন্নি বোর্ডের কর্তারা।

এই কাজের জন্য ইন্দো ইসলামিক কালচারাল ট্রাস্টের হাতে নির্মাণ কার্যের দায়িত্ব তুলে দেয়া হয়েছে। ট্রাস্টের পক্ষ থেকে পুরো প্রকল্পের নকশা থেকে পরিকল্পনার দায়িত্ব তুলে দেওয়া হয়েছে বিশিষ্ট স্থপতি দিল্লির জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য বিভাগের ডিন অধ্যাপক এস এম আখতারের উপর।

এ প্রকল্পের ব্যাপারে ট্রাস্টের সেক্রেটারি আতাহার হুসেন ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যমকে বিবিসিকে জানিয়েছেন, বাবরি মসজিদের বিকল্প জমিটি বাবরি এলাকা বলে পরিচিত হবে না, এটিকে ইন্দো-ইসলামিক কালচারাল ফাউন্ডেশন ট্রাস্ট কমপ্লেক্স বলে অভিহিত করা হবে। আর হাসপাতালে ছাড়াও বৃহৎ পরিসরে গবেষণা কেন্দ্র গড়ে তোলা হবে। তবে এলাকার মধ্যে একটা মসজিদ তৈরি করা হবে মুসল্লিদের জন্য। এছাড়া সংগ্রহ শালাও নির্মাণ করা হবে। ভারতের যে বৈচিত্র্যময় সংস্কৃতি ও ইসলামিক সংস্কৃতির মিলন সেসবের উপর গুরুত্ব দেওয়া হবে গবেষণায়।

Categories
দেশ

ফেসবুক বিজেপি আঁতাত: সংসদীয় কমিটি-ফেসবুকের বৈঠকে ৯০ টি প্রশ্নের লিখিত উত্তর দিতে বলা হল ফেসবুককে

ফেসবুক বিজেপি আঁতাত: সংসদীয় কমিটি-ফেসবুকের বৈঠকে ৯০ টি প্রশ্নের লিখিত উত্তর দিতে বলা হল ফেসবুককে

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে বুধবার হাজির ছিলেন ফেসবুকের ভারতীয় কর্তারা। এদিন, তীব্র বাদানুবাদে উত্তপ্ত হয় ফেসবুকের জবাবদিহি তলবের জন্য ডাকা সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক। সূত্রের খবর, এদিন গোড়া থেকেই আলোচনায় মেজাজ ছিল চরমে। তলব করা হয়েছিল মার্কিন সোশ্যাল মিডিয়া বহুজাতিকের ভারতীয় কর্তা অজিত মোহনকে। সঙ্গে ছিলেন আইনি উপদেষ্টা সাঁঝ পুরোহিত।

মোট সাড়ে তিন ঘণ্টার বৈঠকের মধ্যে অজিতকে প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছে ঘণ্টা দুয়েক। তার পরেও এমন আরও ৯০টি প্রশ্নের বিশদ উত্তর লিখিত আকারে দিতে বলা হয়েছে ফেসবুকের ভারতীয় শাখাকে।

মঙ্গলবারই তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ ফেসবুকের কর্ণধার মার্ক জুকেরবার্গকে চিঠি পাঠিয়েছিলেন। উল্লেখ্য, চিঠিতে প্রসাদের দাবি ছিল, যেখানে ফেসবুকের উচিত মত আদান-প্রদানের খোলা উঠোন হওয়া, সেখানে দক্ষিণপন্থীদের লেখা চেপে দেওয়ার প্রবণতা রয়েছে তাদের। লেখা-ছবি-ভিডিওর সত্যতা যাচাইয়ের পদ্ধতিও শিথিল। তার উপরে সংস্থার শীর্ষ ভারতীয় কর্তারা যে রাজনৈতিক মতাদর্শে বিশ্বাসী, তারা গোহারা হেরেছে গত কয়েকটি ভোটে।

এদিন বৈঠকের পর তথ্যপ্রযুক্তি সংক্রান্ত এই স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান শশী থারুর টুইট করে বলেন, ‘এ দিনের মতো আলোচনা স্থগিত হয়েছে একটু আগে।’ ফেসবুকের ভারতীয় কর্তাদের ফের ডাকা হতে পারে বলেও টুইটে ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি।

উল্লেখ্য, কয়েক মাসের মধ্যেই পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা ভোট। তার আগে বিভিন্ন ফেসবুক পেজ ও অ্যাকাউন্টে নিষেধাজ্ঞা পশ্চিমবঙ্গ নিয়েও ফেসবুক-বিজেপি আঁতাঁতের ইঙ্গিত দেয় বলে ডেরেকের অভিযোগ। শাসক দলের সঙ্গে ফেসবুকের এমন ‘আঁতাঁত’, চিন্তার বিষয় বলে থারুরের কাছে চিঠি পাঠিয়েছিলেন কোয়েম্বাতুরের সিপিএম সাংসদ পিআর নটরাজনও।

Categories
বিশ্ব

করোনা সংক্রমণ থেকে ভ্রমণকারীরা যেন রক্ষা পান: জমজমের পানি দিয়ে ধোওয়া হল কাবা শরীফ

করোনা সংক্রমণ থেকে ভ্রমণকারীরা যেন রক্ষা পান: জমজমের পানি দিয়ে ধোওয়া হল কাবা শরীফ

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: পবিত্র কাবা শরিফ গতকাল বৃহস্পতিবার ধুয়ে পরিষ্কার করা হয়েছে। সৌদি গেজেটের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সৌদিআরবের বাদশাহ ও পবিত্র দুই মসজিদের জি’ম্মাদার সালমান বিন আবদুল আজিজ আল সৌদের পক্ষ থেকে কাবা শরিফ ধোয়ার কাজে নেতৃত্ব দেন মক্কার আমির যুবরাজ খালিদ আল ফয়সাল।

করোনা ভাইরাস সংক্র’মণ থেকে পবিত্র স্থানে ভ্রমণকারীরা যেন রক্ষা পান, সেজন্য কাবা শরিফ ধৌত করার আয়োজন করা হয়। কাবা শরিফ ধোয়ার কাজ পর্যবেক্ষণে যান মক্কার আমির খালিদ আল ফয়সাল, দুই মসজিদের সভাপতি শেখ ডা. আবদুল রহমান আল সুদাইস এবং অন্য কর্মকর্তারা।

জানা গেছে, কাবা শরিফের ভেতরের অংশ পরিষ্কার করেন যুবরাজ খালিদ আল ফয়সাল। জমজম কূপের পানি ও গোলাপ তেলের বিশেষ মিশ্রণ কাপড়ে ভিজিয়ে নিয়ে কাবা শরিফের দেয়াল পরিষ্কার করেন তিনি।

সূত্র : সৌদি গেজেট

Categories
দেশ

গ্রেফতার হওয়ার পর ৭২ ঘণ্টা জল পর্যন্ত খেতে দেওয়া হয়নি: ক্ষোভ উগরে দিয়ে মন্তব্য কাফিল খানের

গ্রেফতার হওয়ার পর ৭২ ঘণ্টা জল পর্যন্ত খেতে দেওয়া হয়নি: ক্ষোভ উগরে দিয়ে মন্তব্য কাফিল খানের

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: ইলাহাবাদ হাইকোর্টের নির্দেশে বুধবার রাতে জেল থেকে ছাড়া পেয়েছেন উত্তরপ্রদেশের চিকিৎসক ডা. কাফিল খান। যদিও প্রাণনাশের আশঙ্কায় নিজের রাজ্য উত্তরপ্রদেশে ফিরে না গিয়ে কংগ্রেস শাসিত রাজস্থানের জয়পুরে আপাতত ঠাঁই নিয়েছেন তিনি ও তাঁর পরিবার। বৃহস্পতিবার জয়পুরে সাংবাদিকদের ম‍ুখোম‍ুখি হয়ে কাফিল বলেন, রাজ্যের স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় যে গাফিলতি রয়েছে তা ফাঁস করে দিয়েছিলে বলেই তাঁকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়। জেলে পোরা হয়। এমনকী গ্রেফতার হওয়ার পর ৭২ ঘণ্টা জল পর্যন্ত খেতে দেওয়া হয়নি।

কাফিল আরও বলেন, তিনি উত্তপ্রদেশের ম‍ুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে বলবেন তাঁর সরকারি হাসপাতালের চাকরি ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য। আর তা না হলে একজন সমাজকর্মী হিসেবে তিনি অসমের বন্যাবিধ্বস্ত এলাকায় মেডিক্যাল ক্যাম্প করবেন। বন্যদুর্গতদের সেবা করবেন। কাফিলের কথায়, ‘আমি খ‍ুব সাধারণ জীবনযাপন করছিলাম। অক্সিজেনের অভাবে বিআরডি মেডিক্যাল কলেজে শিশুমৃত্য‍ুর ঘটনায় আমি স্বাস্থ্য ব্যবস্থার গাফিলতি ফাঁস করার চেষ্টা করেছিলাম। এটা আমাদের ম‍ুখ্যমন্ত্রী ভালো চোখে দেখেননি। আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা কেস দেওয়া হয়েছিল এবং আমাকে জেলে পাঠানো হয়েছিল।’

কাফিলের চাঞ্চল্যকর অভিযোগ, ‘উত্তরপ্রদেশ পুলিশের বিশেষ টাস্কফোর্স (এসটিএফ) আমাকে হেফাজতে নেওয়ার পর বির‍‍ূপ প্রশ্ন করেছিল। আমার বিরুদ্ধে তিন মাসের এনএসএ (জাতীয় সুরক্ষা আইন) প্রয়োগ করা হয়েছিল। তিন মাস পর তার মেয়াদ আরও তিন মাস বাড়ানো হয়েছিল। হেফাজতে নেওয়ার পর তিনদিন আমাকে জল পর্যন্ত খেতে দেওয়া হয়নি। এসটিএফ হেফাজতে নেওয়ার পর আমার উপর শারীরিক নিগ্রহ করেছিল। বির‍ূপ প্রশ্ন করেছিল— আমি সরকার ফেলতে জাপানে গিয়েছিলাম কিনা?’

Categories
রাজ্য

করোনা আবহে বারবার ত্রাতার ভূমিকায়: এবার থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত শিশুর পাশে দেব

করোনা আবহে বারবার ত্রাতার ভূমিকায়: এবার থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত শিশুর পাশে দেব

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: করোনা আবহে বারবার বহু মানুষের কাছে ত্রাতার ভূমিকায় অবতীর্ণ হচ্ছেন অভিনেতা সাংসদ দেব। অনেকেই বলছেন দেব হল বাংলার সোনু সুদ। তৃণমূলের এই সাংসদ তথা বাংলার সুপারস্টার অভিনেতা এবার এক থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত শিশুর পাশে দাঁড়ালেন।

মাসে ২ বার রক্ত নিতে হয় ছোট্ট সৌভিককে। দমদমের এই ছোট্ট ছেলেটি বড় অসহায়! অভাবের তাড়নায় তার পরিবার আ র রক্ত জোগাড় করতে পারছে না। সৌভিকের বাবার এক বন্ধু, অসহায় এই পরিবারের সাহায্যের জন্য টুইট করেছিলেন দেবকে। আর তারকা ঠিক যেন ‘তারকা সুলভ’ভাবেই এই পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন। টুইট পড়ে মুহূর্তে তার উত্তর দেন ঘাটালের সাংসদ।

এরপরই দেবের ব্যক্তিগত সচিব ফোন করেন ওই পরিবারে। দেব ক্যাম্পের সঙ্গে যোগাযোগ হয় সৌভিকদের। আর দেব প্রতিশ্রুতি দেন, তাঁর টিম এই শিশুর জন্য যথাসাধ্য লড়ে যাবে।

এই প্রথম নয়। এর আগেও অভিনেতা সাংসদ বহু শিশুর পাশে দাঁড়াতে এগিয়ে এসেছেন। কয়েকদিন আগে ক্যানসার আক্রান্ত সৌম্যদীপের পাশে এসে দাঁড়ানোর প্রতিশ্রুতি দেন এই তারকা।

একটি বা দুটি নয় । সমাজের বিভিন্ন অংশে বহু মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে দেব যেন সত্যিই বিপদগ্রস্ত মানুষের কাছে দেব হয়ে উঠেছেন। বৃদ্ধ মাস্ক বিক্রেতা থেকে মুমূর্ষ করোনা রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করা। নিজের দফতরকে আইসোলেশন ক্যাম্পে রূপান্তরিত করার মতো বহু কাজই দেব করে আসছেন। আর এতেই ‘দেবভক্ত’ এর সংখ্যা বাড়ছে আরও!

Categories
দেশ

দিশেহারা দেশের অর্থনীতি, দিশেহারা যুবসমাজ! ৮.৩৪ শতাংশে পৌঁছাল বেকারত্বের হার: কর্মহীন গ্রামাঞ্চল

দিশেহারা দেশের অর্থনীতি, দিশেহারা যুবসমাজ! ৮.৩৪ শতাংশে পৌঁছাল বেকারত্বের হার: কর্মহীন গ্রামাঞ্চল

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: করোনা ভাইরাসের ধাক্কায় দিশেহারা দেশীয় অর্থনীতি। জোর ধাক্কা খেয়েছে জিডিপি প্রবৃদ্ধিও। এমতাবস্থায় পাল্লা দিয়ে বেড়েই চলেছে গোটা দেশের বেকারত্বের হার। বর্তমানে করোনাকালীন বেকরত্ব নিয়ে উদ্বেগজনক রিপোর্ট সামনে আনল সেন্টার ফর মনিটারিং ইণ্ডিয়ান ইকোনমিক বা সিএমআইই।

সিএমআইই-র রিপোর্ট বলছে অগাস্টে বেকারত্বের জাতীয় গড় দাঁড়িয়েছে ৮.৩৫ শতাংশে। যা জুলাইয়ে ছিল ৭.৪৩ শতাংশ। আগামীতে এই ক্ষেত্রে আরও বড়সড় পারাপতনের সাক্ষী থাকতে পারে গোটা দেশ এমনটাই মনে করছেন বিশেষজ্ঞেরা। ১লা সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার এই রিপোর্ট সামনে আনে সিএমআইই।

এদিকে আগস্টে দেশের সামগ্রিক কর্মসংস্থান হারও থমকেছে বলে জানাচ্ছে সিএমআইই। তবে জলুইয়ের তুলানায় এই ক্ষেত্রে পারাপতন খুবই কম। জুলাইয়ে গোটা দেশে সামগ্রিক কর্মসংস্থানের হার ছিল যেখানে ৩৭.৬ শতাংশ, অগাষ্টে তা কিছু কমে দাঁড়ায় ৩৭.৫ শতাংশে। বিশেষজ্ঞদের ধারণা এই কারণেই বেকারত্বের জাতীয় গড় ৮.৪ শতাংশের ক্রমশ কাছে চলে যাচ্ছে।

এদিকে কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে ক্রমেই খারাপ হচ্ছে গ্রামাঞ্চলের অবস্থাও। মহাত্মা গান্ধী জাতীয় গ্রামীণ কর্মসংস্থান গ্যারান্টি স্কিমেও মিলছে না পর্যাপ্ত কাজের খোঁজ। সর্বশেষ পরিসংখ্যান জানাচ্ছে জুলাইয়ের থেকে অগাস্টে দেশের গ্রামাঞ্চলগুলিতে ক্রমেই বেড়েছে বেকারত্বের পরিমাণ। অগাস্টে গ্রামাঞ্চলে বেকারত্বের পরিমাণ বেড়ে দাঁড়ায় ৭.৫ শতাংশ। জুলাইয়ে যা ছিল ৬.৬৬ শতাংশ।

এদিকে করোনাকালীন সঙ্কটের আগে গোটা দেশে গড় বেকারত্বের হার ছিল ৭.২২ শতাংশ থেকে ৭.৭৬ শতাংশের আশেপাশে। বর্তমানে সিএমআইই কর্তৃক প্রকাশিত সর্বশেষ তথ্যানুসারে, অগাস্টে শহরাঞ্চলের বেকারত্বের পরিমাণ ৯.৮৩ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। জুলাইয়ে এই হার ছিল ৯.১৫ শতাংশ।

Categories
দেশ

আদালত অবমাননার ক্ষমতার অপব্যবহার হচ্ছে, এই নিয়মটি তুলে দেওয়া উচিত: প্রশান্ত ভূষণ

আদালত অবমাননার ক্ষমতার অপব্যবহার হচ্ছে, এই নিয়মটি তুলে দেওয়া উচিত: প্রশান্ত ভূষণ

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: বিচারব্যবস্থা নিয়ে আলোচনা করতে গেলে বা মত প্রকাশের স্বাধীনতা দেখাতে গেলে অনেকসময় আদালত অবমাননার ক্ষমতার অপব্যবহার করা হয়ে থাকে। সম্প্রতি আদালত অবমাননার দায়ে দোষী সাব্যস্ত করে জরিমানা করা হয়েছে আইনজীবী ও সমাজকর্মী প্রশান্ত ভূষণকে। তাঁর প্রতি ক্ষমতার অপব্যবহার প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে তিনি জানান, আদালত অবমাননা বিষয়টি ভয়ঙ্কর। অবিলম্বে এই নিয়মটি তুলে দেওয়া উচিত।

তিনি আরও বলেন, প্রত্যেক নাগরিকই গণতান্ত্রিক আবহে বাস করে। যাঁরা বিচারব্যবস্থার মাধ্যমের সঙ্গে যুক্ত, তাঁদের অন্তত স্বাধীনভাবে কথা বলার অধিকার থাকা উচিত। কিন্তু, দুর্ভাগ্যবশত, তাঁদেরকেও আদালত অবমাননার দায়ে কলঙ্কিত করা হয়। ক্লাব অফ সাউথ এশিয়ার বিদেশি করেসপন্ডেন্টদের আয়োজিত ‘ফ্রিডম অফ স্পীচ অ্যান্ড ইন্ডিয়ান জুডিশিয়ারি’ নামে এক ওয়েবিনারে ভাষণ দিতে গিয়ে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

প্রশান্ত ভূষণ বলেন, এখানে বিচারকই অভিযুক্তর আইনজীবী হিসেবে কাজ করেন। এই ভয়ঙ্কর ব্যবস্থা নিজেদের ব্যবস্থার উপর আক্রমণ শানায়। ভারতের মতো বেশ কিছু দেশে এই ব্যবস্থা এখনও চালু রয়েছে। তিনি আরও বলেন, এমন নয় যে বিচারকের বিরুদ্ধে ন্যক্কারজনক অভিযোগ করা হচ্ছে না। কিন্তু, এই ধরনের সমালোচনা করলে বিচারব্যবস্থার উপর শ্রদ্ধা নেই এমনটা বলা ঠিক নয়।

উল্লেখ্য, বিচারব্যবস্থার বিরুদ্ধে ট্যুইট করার অপরাধে আদালত অবমাননার দায়ে প্রশান্ত ভূষণকে ১ টাকা পরিমানা করা হয়েছে। ১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে এই জরিমানা তাঁকে জমা করতে বলা হয়েছে। অনাদায়ে ৩ মাসের জেল ও ৩ বছরের জন্য আইনি প্র্যাকটিস বন্ধ হতে পারে তাঁর।