শিক্ষক নেতা মইদুল ইসলামকে গৃহবন্দি করার অভিযোগে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের মামলা দায়ের

শিক্ষক নেতা মইদুল ইসলামকে গৃহবন্দি করার অভিযোগে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের মামলা দায়ের

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: শিক্ষক নেতা মইদুল ইসলামকে গৃহবন্দি করার অভিযোগে মামলা দায়ের। মামলা দায়ের করল জাতীয় মানবাধিকার কমিশন (NHRC)। দিল্লিতে অভিযোগ দায়ের করল NHRC।

জানা গিয়েছে, প্রথমে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছিলেন শিক্ষক নেতা। তাঁকে গৃহবন্দি করে রাখার অভিযোগ করেন তিনি। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে একটি প্রাথমিক তদন্ত করে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন। এরপর মামলা দায়ের করল তাঁরা।

৯ সেপ্টেম্বর রাতে বেলেঘাটায় শিক্ষক নেতার শ্বশুরবাড়িতে অভিযানে যায় নিউটাউন নর্থ এবং বেলেঘাটা থানার পুলিস। ‘শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ’-র সাধারণ সম্পাদক মইদুল ইসলামকে গ্রেফতার করা নিয়ে চরম নাটকীয়তা হয়। মইদুলকে বাইরে বেরিয়ে আসতে অনুরোধ করেন পুলিস কর্মীরা। কিন্তু রাতে পুলিসের সঙ্গে যেতে রাজি হননি মইদুল। সকালে যাওয়ার কথা জানান তিনি। দীর্ঘ কথাবার্তার পর ১টা নাগাদ এলাকা ছাড়ে পুলিস। সোশ্যাল মিডিয়ায় পুলিসের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন শিক্ষক নেতা।

এরপর পুলিসি অতিসক্রিয়তার অভিযোগে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন শিক্ষক নেতা মইদুল ইসলাম। তাঁর অভিযোগ, সহযোগিতা করার আশ্বাস দিলেও পুলিস অতিসক্রিয়তা দেখায়। বাড়িতে চড়াও হয়।

শিক্ষকনেতার অভিযোগ, ‘SSK শিক্ষকদের ন্যায্য পাওনার দাবিতে তাঁকে হয়রান করছে পুলিশ।’ সূত্রের খবর, গত ২৪ অগাস্ট বিকাশ ভবনের সমনে ৫ শিক্ষিকার বিষ খাওয়ার ঘটনায় মইদুলবাবুর বিরুদ্ধে খুনের চেষ্টার অভিযোগ এনেছে পুলিশ। শিক্ষক নেতার দাবি, ঘটনাস্থলে হাজির না থাকা সত্ত্বেও তাঁকে দায়ী করা হচ্ছে। ওই ঘটনায় পুলিশ বিনা নোটিসে, ওয়ারেন্ট ছাড়াই তাঁর বাড়িতে হাজির হয় বলে অভিযোগ। এ ব্যাপারে আইনের দ্বারস্থ হবেন বলে জানায় শিক্ষক নেতা। এরপরই পুলিশি অতিসক্রিয়তার অভিযোগে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন তিনি।

এবিষয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের মন্তব্য, শিক্ষকদের যেভাবে বদলি করা হয়েছে তাঁরা কষ্টের মধ্যে আছেন। যাঁরা নেতৃত্ব দিচ্ছেন, তাঁদেরকে জব্দ করার চেষ্টা চলছে। উল্লেখ্য একুশের বিধানসভা ভোটে মগরাহাটে বামজোটের প্রার্থী হন মইদুল ইসলাম।

এঘটনার পর শিক্ষক নেতা মইদুল ইসলামের বাড়িতে যান কামদুনির প্রতিবাদী মৌসুমী কয়াল। ছিলেন প্রতিবাদী মুখ হিসেবে পরিচিত সইদুল লস্কর, প্রতিমা দত্ত, প্রতাপ বসু, সুজয় পালিতরাও। মইদুল ইসলামের পাশে থাকার বার্তা দিয়ে তাঁরা বলেন, অন্যায়ের বিরুদ্ধে তাঁরা লড়ছেন, এবং এই লড়াই চালিয়ে যাবেন