রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে আরএসএস-র পছন্দের মহারাজ কৃপাকরানন্দ মুখ খুললেন রাজনীতি নিয়ে!

    রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে আরএসএস-র পছন্দের মহারাজ কৃপাকরানন্দ মুখ খুললেন রাজনীতি নিয়ে!

    নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: বাংলার রাজনীতির সঙ্গে সেভাবে কোনও সন্ন্যাসীর নাম সরাসরি ভাবে জড়ায়নি। কিন্তু ইতিহাসকে পাল্টে এই প্রথম কোনও দিব্যকান্তি সন্ন্যাসীর নাম বাংলার অগ্নিগর্ভ রাজনীতির ময়দানে উঠে আসতে শুরু করেছে। একদিকে, বিজেপির অন্দরে গোষ্ঠীকোন্দল যখন মাথাচাড়া দিতে শুরু করেছে, তখন আরএসএস বাংলার মুখ্যমন্ত্রীপ সিংহাসনে কাদের দেখতে চাইছে, তা নিয়ে পছন্দের নামের তালিকা প্রস্তুত রেখেছে। সেই নিয়ে জল্পনার পাহাড় বহুদিন ধরেই ছিল। আর যিনি এই সমস্ত জল্পনার কেন্দ্রীয় চরিত্র, রামকৃষ্ণমিশনের সেই মহান সন্ন্যাসী কৃপাকরানন্দ মহারাজ বৃহস্পতিবার এক ফেসবুক লাইভে রাজনীতি নিয়ে মুখ খুললেন।

    এক ফেসবুক লাইভে সরাসরি কৃপাকরানন্দ মহারাজকে প্রশ্ন করা হয়েছিল যে , অদূর ভবিষ্যতে কি রাজনীতিতে তাঁদের মতো রামকৃষ্ণমিশনের মহারাজকে রাজনীতিতে পাওয়া যাাবে? জবাবে কৃপাকরানন্দ বলেন ‘যাঁরা আমারা সন্ন্যাসী বা সন্ন্যাসী হওয়ার চেষ্টা করছি, তাঁরা আমরা সবাই স্বামীজির দাসানুসাদ। এটা ব্যক্তিগত ভাবনা আমার। .. স্বামীজিকে মানতে আমাদের বাধ্য করতে হয় না, স্বামীজিকে মানতে পারার জন্য আমরা নিজেকে যোগ্য করে তুলি.. মানাটা কঠিন, কিন্তু যোগ্যতা অর্জনের চেষ্টা আমরা করে চলি..। ‘

    কলেজ জীবনে পড়াকালীন বহু স্বাধীনতা সংগ্রামীর এককালে ইন্টারভিউ করেন তৎকালীন দেবতোষ চক্রবর্তী। সেই প্রসঙ্গ তুলে তিনি রাজনীতি নিয়ে নিজের অবস্থানের ব্যাখ্যা করেন। ‘স্বামীজি কিন্তু রন্ধ্রে রন্ধ্রে এই জাতীয়তবাদের ইতিহাসের প্রাণপুরুষ। সনাতন শিক্ষায়, ধর্ম, সমাজ, রাজনীতি, অর্থনীতিতে কোনও ভেদ নেই। …ধর্মের লোক আর রাজনীতির লোক বলে বিভেদ করা কখনও সম্ভব নয়। ‘

    ‘রাজনীতি হয়তো আমরা কোনও দিনও করব না। হয়তো কেন কোনও দিনই করব না। কিন্তু রাজনীতির নীতি বা ধর্মনীতির নীতি কোনও কিছুই কি মানুষ থেকে আলাদা? মানুষের কল্যাণ ভিন্ন অন্য কোনও চিন্তা কি এর মধ্যে থাকবে? যদি না থাকে, তাহলে তা দুর্নীতি। ‘