বহু গ্রন্থ প্রণেতা ও বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ মাওঃ গোলাম আহমদ মোর্তজা ইন্তেকাল করলেন

    বহু গ্রন্থ প্রণেতা ও বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ মাওঃ গোলাম আহমদ মোর্তজা ইন্তেকাল করলেন

    নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন! ইন্তেকাল করলেন মেমারি জামিয়া মাদ্রাসা ও মামুন ন্যাশনাল স্কুল সহ একাধিক প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা, বহু গ্রন্থপ্রণেতা, বিশিষ্ট ইতিহাসবিদ ও বাগ্মী জনাব হাফেয গোলাম আহমাদ মোর্তজা সাহেব। ২ রমাযান, মোতাবেক ১৫ এপ্রিল ২০২১ রাত ০৩:৩৫ মিনিটে ইন্তেকাল করেছেন। বয়সজনিত বিভিন্ন সমস্যায় তিনি জিডি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরন করেন।মৃত্যুকালে মরহুমের বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর। রেখে গেছেন ৬ পুত্র,এক কন্যা ও অসংখ্য ভক্ত ও অনুসারী।

    মরহুমের অগণিত ভক্ত ও শুভানুধ্যায়ীদের কাছে তাঁর রুহের মাগফিরাত ও পরকালের মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য পরিবারের পক্ষ হতে বিশেষ দোওয়ার আবেদন জানানো হয়েছে।

    তাঁর লেখা সাড়া জাগানো কয়েকটি গ্রন্থ হলো- চেপে রাখা ইতিহাস, বাজেয়াপ্ত ইতিহাস, ইতিহাসের ইতিহাস, এ এক অন্য ইতিহাস, পুস্তক সম্রাট, রক্তাক্ত ডায়েরি, বর্জ্র কলম, ইতিহাসের এক বিস্ময়কর অধ্যায়, এ সত্য গোপন কেন? উল্লেখযোগ্য।

    ইতিহাসবিদ আল্লামা গোলাম আহমাদ মোর্তজা: ইনি হলেন সেই মহান ব্যাক্তি গোলাম আহমদ মোর্তাজা যার বই এবং তাকরিরের মাধ্যমে মানুষ হাজারো ইতিহাস জানতে পেরেছে। গোলাম আহমাদ মোর্তজা জন্ম বর্ধমান জেলার মেমারিতে। তিনি একজন বক্তা,গবেষক ও লেখক। তিনি দুই বাংলার অর্থাৎ ভারত বাংলাদেশের পাঠকদের কাছে সমানভাবে জনপ্রিয়।

     

    ইতিহাসের বিভিন্ন পর্যায়ে যেমন পলাশীর যুদ্ধ,অন্ধকূপ হত্যাকান্ড, মহামতি আকবরের কথা এমনি অনেক নতুন তথ্য তিনি প্রমাণসহ পেশ করেন। যা আসলে আমরা যেভাবে জানি সেভাবে বলা হয়নি। তাঁর পুস্তক পাঠে বিশ্বাস অবিশ্বাসের দোলাচলে পড়ে যায় পাঠক, কিন্তু গোলাম আহমাদ মোর্তজা এমনভাবে তথ্য উপাত্ত উপস্থাপন করেছেন। তাতে তাকে মেনে নিতে হয়েছে ভারতের বর্তমান ঐতিহাসিকদের। বিখ্যাত ইতিহাসবিদরা তার তথ্য মেনে নিয়েছেন এবং প্রশংসা করেছেন।

     

    ইতিহাসের অনেক বিখ্যাত ব্যক্তিদের সম্পর্কে তথ্য দেন যা চাপা পড়ে ছিলো ইতিহাসের পাতায়। তিনি সেগুলোকে সামনে তুলে আনার চেষ্টা করেন। তাকে নিয়ে এ পর্যন্ত অনেক বিতর্কের সৃষ্টি হয়। রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় তিনি বক্তব্য দিয়ে থাকেন এবং তিনি “বক্তা সম্রাট’ নামে পরিচিত। তিনি বিখ্যাত হয়েছেন তাঁর কয়েকটি ইতিহাসের বই ও ইতিহাস ভিত্তিক বিতর্কিত বক্তব্যের মাধ্যমে। ইতিহাসের ইতিহাস, চেপেরাখা ইতিহাস,বাজেয়াপ্ত ইতিহাস,পুস্তক সম্রাট সহ অনন্য ইতিহাসের বইয়ের মাধ্যমে তিনি সর্বপ্রথম আলোচনায় আসেন।

     

     

    গতানুগতিক ইতিহাস বিষয়ক পাঠ্যপুস্তকগুলোতে মুসলিমদের নিয়ে লিখিত বিভিন্ন তথ্য তিনি বানোয়াট দাবী করেন। সেই তথ্যগুলোর বিরোধীতা করেন এবং সেগুলো মিথ্যা তথ্য তিনি প্রমাণসহকারে খণ্ডন করার চেষ্টা করেন এই গ্রন্থ গুলোতে। চাপা পড়া ইতিহাস সামনে তুলে এনে প্রমাণসহকারে উপস্থাপন করার চেষ্টা করেন যার ফলে পশ্চিমবঙ্গ সরকার ১৯৮১ সালে তাঁর একটি গ্রন্থ বাজেয়াপ্ত করেন।

     

    এরপর তিনি একেরপর এক ইতিহাসের বই প্রকাশ করতে থাকেন,যার সিংহভাগ বই’ই সাম্প্রদায়িকতার অভিযোগে পশ্চিমবঙ্গের সরকার বাতিল করেন। তাঁর উপর সাম্প্রদায়িকতার অভিযোগ আনায় গোলাম আহমাদ মোর্তজা তাঁর “বাজেয়াপ্ত ইতিহাস” গ্রন্থে এর প্রতিবাদ করেন।