রঞ্জিতে ভালো পারফরম্যান্সের পরও দিলীপে ব্রাত্য বাংলার অধিনায়ক মনোজ তিওয়ারি

রঞ্জিতে ভালো পারফরম্যান্সের পরও দিলীপে ব্রাত্য বাংলার অধিনায়ক মনোজ তিওয়ারি

স্পোর্টস ডেস্ক, বঙ্গ রিপোর্টঃ একদিকে খুশি আছে তো অন্যদিকে চরম হতাশা। দলীপ ট্রফির দলে বাংলা থেকে সুযোগ পেয়েছেন অভিমন্যু ঈশ্বরণ ও ঈশান পোড়েল। কিন্তু ধারাবাহিকভাবে ভালো পারফরমেন্সের পরও ব্রাত্য থেকে গিয়েছেন বাংলার অধিনায়ক মনোজ তিওয়ারি।

 

নিজের ট্যুইটারে এমএসকে প্রসাদের নির্বাচক কমিটিকে কাঠগড়ায় তুলেছেন মনোজ। তিনি লিখেছেন, “দলীপ ট্রফির দল ঘোষণার পর নির্বাচকদের প্রতি আমার কয়েকটা প্রশ্ন। আমার মতো প্লেয়ারের জন্য জাতীয় দলে ফিরে আসার বা দলীপ ট্রফির দলে সুযোগ পাওয়ার মাপকাঠি কি হতে পারে, একটু বলবেন?” এরপর তিনি আরও লেখেন, “আমি দেখেছি দলীপের দলে সিকিম, অরুণাচল, নাগাল্যান্ডের মতো নতুন রাজ্যের এমন অনেক ক্রিকেটার সুযোগ পেয়েছেন। যোগ্যতাকে প্রাধান্য দেওয়া হয় না তার মানে। বিশ্লেষণ দরকার, যা ক্রিকেটাররা খোঁজে। কিন্তু গত দেড় বছর থেকে আমি সেই বিষয়টাই দেখতে পাচ্ছি না।

 

শেষ মরসুমে আমি একমাত্র ব্যাটসম্যান যে ৪ নম্বর পজিশনে নেমে ৫০ ওভারের ফরম্যাটে রেকর্ড করেছিলাম ঘরোয়া ক্রিকেটে। দেওধর ও বিজয় হাজারেতে আমার একশোর মত গড় ছিল। আমি সত্যিই নির্বাচকদের পরিকল্পনা জানতে চাইছি। সেই বুঝে নতুন মরসুমের আগে চিন্তা ভাবনা করব।” নিজের পারফরমেন্সের স্ট্যাটও তুলে ধরেছেন ৩৩ বছরের এই ব্যাটসম্যান। লিখেছেন,”মধ্যপ্রদেশের বিরুদ্ধে ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলাম। পাঞ্জাবের বিরুদ্ধে সেঞ্চুরি। ২টো দলের বোলিং লাইন আপই খুব শক্তিশালী। আমি আমার পরিসংখ্যান জানাতে চাই না। কিন্তু সবাইকে বলব একবার সেদিকে নজর দিতে।” উল্লেখ্য, গত মরসুমে রঞ্জিতে মধ্যপ্রদেশের বিরুদ্ধে অপরাজিত ২০১ রানের ইনিংস খেলেছিলেন মনোজ। ২০১৭/১৮ মরসুমে বিজয় হাজারে ট্রফিতে গড় ছিল ১০৯.৩৩। দেশের হয়ে ১২টি ওডিয়াই ও ৩ টি টি২০ খেলেছেন বাংলার এই ক্রিকেটার। গত মরসুমেও দলীপে জায়গা হয়নি। তাহলে কি তারুণ্যের ভিড়ে ৩৩ এর মনোজ পুরোপুরিই জাতীয় নির্বাচকদের বাতিলের খাতায় চলে গিয়েছেন? বাংলা ক্রিকেটপ্রেমীদের মতোই উত্তর চাইছেন মনোজ নিজেও।