কোলকাতা উড়ালপুলের পর চিনা বিমানবন্দর! চিনা এয়ারপোর্টকে মোদির কীর্তি বলে প্রচার বিজেপির: মুখ পুড়লো গেরুয়া শিবিরের

কোলকাতা উড়ালপুলের পর চিনা বিমানবন্দর! চিনা এয়ারপোর্টকে মোদির কীর্তি বলে প্রচার বিজেপির: মুখ পুড়লো গেরুয়া শিবিরের

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: উত্তরপ্রদেশ নির্বাচনের আগে নিজ রাজ্যে উন্নয়নের ঢাক পেটাতে কলকাতার মা উড়ালপুলের ছবি ব্যবহার করেছিল যোগী সরকার। টুকলি ধরা পড়ে যায়। বেপরোয়া বিজেপির মিথ্যার ঝুড়ি ফেটে গেল আন্তর্জাতিক মহলে।

মোদি সরকারের উন্নয়নের নজির হিসেবে নয়ডা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সম্ভাব্য চেহারার ছবি পোস্ট করেছিলেন বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও শীর্ষ নেতারা। সম্প্রতি এই বিমানবন্দরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন স্বয়ং নরেন্দ্র মোদি। আর তার সম্ভাব্য চেহারার ছবি পোস্ট করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর, অন্নপূর্ণা দেবী, অর্জুনরাম মেঘওয়াল, প্রহ্লাদ প্যাটেল, উত্তরপ্রদেশের বিজেপি সভাপতি স্বতন্ত্রদেব সিং ও উপমুখ্যমন্ত্রী কেশবপ্রসাদ মৌর্য। তবে যে ছবি পোস্ট করা হয়েছে তা নয়ডার বলে চালানোর চেষ্টা হলেও আসলে তা বেজিংয়ের ডাক্সিং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ছবি।

মোদি টিমের এহেন জালিয়াতি এদিন ফাঁস করে দিয়েছেন চিনের সরকারি চ্যানেলের এক কর্মী। যার ফলে স্বাভাবিকভাবেই মুখ পুড়েছে বিজেপির। এক টুইটে চিনের ওই সরকারি চ্যানেলের কর্মী লেখেন, “ধাপ্পা… ভারত সরকারের পরিকাঠামো উন্নয়নের সাফল্য প্রমাণে বেজিংয়ের ডাক্সিং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ছবি ব্যবহার করতে হল আধিকারিকদের! স্তম্ভিত।” ভুয়ো ছবি সহ বিজেপি নেতা-মন্ত্রীদের করা টুইটগুলিও একযোগে পোস্ট করেন শিওয়েই। সেই সঙ্গে আসল ছবিটি পোস্ট করে তিনি লেখেন, “চিনের বেজিং ডাক্সিং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে স্বাগত জানাই। এটি ১ হাজার ৭৪৭ কোটি ডলারের মেগা প্রজেক্ট।”

অথচ চিনের এই বিমানবন্দরকে নয়ডার নির্মীয়মান বিমানবন্দর বলে দাবি করে অনুরাগ ঠাকুর টুইটে লিখেছিলেন, “নয়ডায় এশিয়ার বৃহত্তম আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ৩৫ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ আনবে”। জালিয়াতির ছবিটা আরো স্পষ্ট হয়েছে নয়ডা বিমানবন্দরের সরকারি টুইটার হ্যান্ডলেও। সেখানে ২৪ নভেম্বর একটি গ্রাফিক্যাল ডিজাইন প্রকাশ হয়। তার সঙ্গেও মিল নেই মোদির মন্ত্রীদের পোস্ট করা ছবির।