দুয়ারে রেশন বাতিলের দাবি ডিলারদের: খাদ্য নিয়ামকের অফিসে ধর্না-বিক্ষোভ

দুয়ারে রেশন বাতিলের দাবি ডিলারদের: খাদ্য নিয়ামকের অফিসে ধর্না-বিক্ষোভ

 

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের প্রকল্প দুয়ারে রেশন। উপভোক্তাদের বাড়ি-বাড়ি পৌঁছে যাবে রেশন-পণ্য। তবে রাজ্য সরকারের এই পাইলট প্রজেক্ট নিয়ে ঘোর আপত্তি রেশন-ডিলারদের একাংশের। দুয়ারে রেশন প্রকল্প বাতিলের দাবিতে সরব তাঁরা। আরামবাগে খাদ্য নিয়ামকের অফিসের সামনে তুমুল বিক্ষোভ ডিলারদের। যদিও ডিলারদের সঙ্গে আলোচনা করেই সমস্যা মেটানোর আশ্বাস আরামবাগ মহকুমা খাদ্য নিয়ামক আধিকারিকের।

 

দুয়ারে সরকার প্রকল্পে বিপুল সাড়া মিলেছে। এবার শুরু হতে চলেছে দুয়ারে রেশন প্রকল্প। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অন্যতম পছন্দের এই প্রকল্পের মাধ্যমে রেশন-পণ্য উপভোক্তাদের বাড়ি-বাড়ি পৌঁছে দেওয়া হবে। আপাতত আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে রাজ্যজুড়ে পরীক্ষামূলক ভাবে চালু হতে চলেছে দুয়ারে রেশন প্রকল্প। দুয়ারে রেশন পৌঁছতে সরকারি কোষাগার থেকে ঠিক কতটা বাড়তি খরচ হবে, তার একটা স্পষ্ট ধারণা পেতে চাইছে খাদ্য দফতর। সেই কারণেই আপাতত পরীক্ষামূলকভাবেই শুরু হচ্ছে প্রকল্পের কাজ।

 

অবিলম্বে দুয়ারে রেশন প্রকল্প বন্ধের দাবিতে তুমুল বিক্ষোভ চলে আরামবাগে। বর্তমান পরিকাঠামোয় উপভোক্তাদের বাড়ি-বাড়ি গিয়ে রেশন-পণ্য দেওয়া সম্ভব নয় বলে দাবি করেছেন ডিলারদের একাংশ। আরামবাগ মহকুমার শতাধিক রেশন ডিলার বিক্ষোভে সোচ্চার হয়েছেন। দুয়ারে রেশন প্রকল্প বাতিলের দাবিতে মহকুমা খাদ্য নিয়ামক অফিসের সামনে তাঁরা অবস্থান বিক্ষোভ করেছেন দিনভর। দাবি আদায়ে ডেপুটেশনও দেওয়া হয় মহকুমা খাদ্য নিয়ামক আধিকারিককে।

 

বিক্ষোভকারী এক রেশন ডিলারের অভিযোগ, “দেড় বছর ধরে কমিশন মোটনো হয়নি। দুয়ারে রেশন প্রকল্পের জন্য আমাদের আশঙ্কা-উদ্বেগ বাড়ছে। বাড়ি-বাড়ি রেশন দিতে বলছে সরকার। আমরা কীভাবে যাব, সেব্যাপারে কিছু বলা হয়নি। কোনও কমিশনের কথাও লেখা নেই। কোন গাড়িতে পণ্য-সামগ্রী যাবে বলা হয়নি। ডিলারদের দুয়ারে গিয়ে পণ্য দিয়ে আসতে হবে। এটা আমরা মানছি না।”