অতিরিক্ত করোনা সংক্রমণে ভেঙে পড়তে পারে দিল্লির স্বাস্থ্য পরিষেবা! ৬ দিনের লকডাউনের ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

অতিরিক্ত করোনা সংক্রমণে ভেঙে পড়তে পারে দিল্লির স্বাস্থ্য পরিষেবা! ৬ দিনের লকডাউনের ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: দিল্লিতে প্রতিদিন করোনা সংক্রামিতের সংখ্যা ২৫ হাজারের বেশি। সেই পরিস্থিতিতে যে কোনও সময় ভেঙে পড়তে পারে দিল্লির স্বাস্থ্য পরিষেবা। যা থেকে মানুষকে রক্ষা করতে দিল্লিতে ছয়দিনের লকডাউনের কথা ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল । মঙ্গলবার রাত থেকেই লকডাউন কার্যকর করা হচ্ছে।

এদিন লকডাউনের কথা ঘোষণা করতে গিয়ে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল বলেছেন, দিল্লিতে করোনার চতুর্থ ওয়েভ চলছে। এদিন তিনি দিল্লির উপরাজ্যপাল লেফটেন্যান্ট জেনারেল অনিল বাইজলের সঙ্গে বৈঠক করেন। তারপরেই তিনি সোমবার মধ্যরাত থেকে শুরু করে ২৬ এপ্রিল সকাল পর্যন্ত লকডাউনের সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করেছেন।

এদিন কেজরিওয়াল লকডাউনের সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করতে গিয়ে বলেছেন, দিল্লিতে এদিন রাত ১০ টা থেকে ছোট লকডাউন শুরু হচ্ছে। কেউ দিল্লি ছেড়ে যাবেন না। অত্যাবশ্যকীয় পরিষেবা বজায় থাকবে। বিবাহের কোনও অনুষ্ঠান থাকলে সেখানে ৫০ জনের জমায়েতের অনুমতি দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

সূত্রের খবর অনুযায়ী, লকডাউনের সময়ে দিল্লির সব বেসরকারি অফিসের কর্মীরা বাড়ি থেকেই কাজ সারবেন। আর সরকারি ক্ষেত্রে শুধুমাত্র জরুরি পরিষেবার বিষয়গুলির সঙ্গে জড়িত কর্মীদের হাজিরা দিতে হবে।দিল্লির উপরাজ্যপাল বাইজল ইতিমধ্যেই পরিযায়ী শ্রমিকদের বিষয়টি নিয়ে নির্দেশ দিয়েছেন। দিল্লিতে অক্সিজেন সরবরাহের বিষয়টি নিয়েও তিনি উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোদী আদিত্যনাথকে চিঠি লিখবেন বলে জানা গিয়েছে। তিনি ইতিমধ্যেই বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধনের সঙ্গে কথা বলেছেন বলে জাৈনা গিয়েছে।

এর আগে দিল্লির সরকার সপ্তাহ শেষের কার্ফু জারি করেছিল। যা এদিন সকাল ৫ টায় শেষ হয়েছে। রাস্তার পাশাপাশি বাজারগুলিও ছিল ফাঁকা। দিল্লিতে ইতিমধ্যেই দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২৫ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে।এদিকে করোনা পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে দিল্লি হাইকোর্ট নিম্ন আদালতগুলিতে নির্দেশ দিয়েছে. যাতে তারা শুধুমাত্র জরুরি বিষয়গুলিরই শুনানি করে। সেটাও ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যাতে হয়, তার জন্যও বলা হয়েছে।