ব্লকে বিভিন্ন কাজে গিয়ে হয়রানির স্বীকার ফারাক্কাবাসি

ব্লকে বিভিন্ন কাজে গিয়ে হয়রানির স্বীকার ফারাক্কাবাসি

পাঠকের কলমে, বঙ্গ রিপোর্ট: রাজ্যে স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকলেও প্রসাসনিক দপ্তর প্রায় রাজ্যের প্রতিটি জায়গায় কাজ বন্ধ নেই।তেমন সরকারিভাবে ব্লক অফিসে ও স্বাভাবিক কাজকর্ম চলছে।কিন্তু বিকল্প ফারাক্কার ব্লকের কাজকর্ম।প্রায় প্রতিদিনই এলাকাবাসীর মুখে শুনা যাচ্ছে ব্লকে গিয়ে হয়রানির স্বীকার এলাকার বাসিন্দারা।বিশেষ করে এলাকার বাসিন্দারা বার্ধক্য ভাতার ফর্ম জমা করতে গিয়ে ও রেশন কার্ড সংশোধনের জন্য ফর্ম জমা করতে গিয়ে প্রায় দিনই হয়রানির স্বীকার হচ্ছে বলে অনেকের অভিযোগ।অভিযোগ খতিয়ে দেখতে ব্লক অফিসে গিয়ে দেখা গেল যে,অফিস খোলা রয়েছে কিন্তু অফিসের ভিতরে ঢুকার মেন গেটে তালা ঝুলানো।

কাউকেই ভিতরে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছেনা,খুব পরিচিতি ছাড়া।অনেকের মুখ থেকে শুনা গেলো কয়েক মাস থেকেই এমনভাবে এলাকাবাসি প্রয়োজনীয় কাজে গিয়ে হয়রানির স্বীকার।কোনও প্রয়োজনীয় কাজের জন্য গেটে যোগাযোগ করলে বলা হচ্ছে ভিতরে ঢুকা যাবেনা।বি.ডি.ও সাহেব এখন কথা বলবেননা,পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতির সাথে এখন দেখাও করা যাবেনা।আজ এমনই কিছু অভিযোগ নিয়ে আশায় বুক বেঁধে ফারাক্কার বি.ডি.ও রাজস্বী চক্রবর্তী ও ফারাক্কা পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি অঞ্জুময়ারা খাতুনের কাছে অভিযোগ করতে গিয়েছিলো অনেকেই।কিন্তু গেটের ভিতরে ঢুকতে না দেওয়ায় তারা শুন্য হাতে বাড়ি ফিরলো।

তাদের অভিযোগ ছিলো তারা বিগত কয়েক মাস থেকেই ফারাক্কার ফুড ইন্সপেক্টর ডিপার্টমেন্ট ও বার্ধক্যজনিত ভাতার আবেদন করতে গিয়ে প্রায় কয়েক মাস থেকেই হয়রানি হচ্ছে।তাদের প্রতিদিনই বলা হচ্ছে কাল আসুন,আবার কখনও বলা হচ্ছে মাসের মাঝামাঝি সময়ে আসুন,আবার কখনও কখনও বলা হচ্ছে এখনতো কোনও নির্দেশ নেই আমাদের কাছে আবেদনপত্র জমা নেওয়ার।এভাবে দীর্ঘদিন ধরেই তারা হয়রানির স্বীকার বলে অনেকে ক্ষোভ উপরে দিয়েছেন।অফিসের সামনে যে নোটিশ দেওয়া হয়েছে তাতে স্পষ্ট নয় কবে থেকে ফর্ম জমা নেওয়া হবে ও কি কি যাবতীয় কাগজপত্র লাগবে।রেশন কার্ড সংশোধনের জন্য কি কি যাবতীয় কাগজপত্র লাগবে তা জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন আর.টি.আই জানিয়ে দেওয়া হবে।আমরা বাইরে নোটিশ দেবনা।

যদিও ফারাক্কা পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি অঞ্জুময়ারা খাতুন পূর্বেই জানিয়েছেন রেশন কার্ড সংশোধনের জন্য ভোটার কার্ড কিংবা যেকোনো একটি আইডি প্রুফ দিলেই হবে।
রেশন কার্ড সংশোধনের জন্য কি কি কাগজপত্র লাগবে তা ফুড ইন্সপেক্টরের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন আর.টি.আই করুন জানিয়ে দেওয়া হবে,আমরা বাইরে নোটিশ দেবোনা।

তাছাড়া আগে যে সংশোধনের জন্য ফর্মগুলো জমা হয়েছিল সেগুলোর কার্ড কবে পাওয়া যাবে তার পরিষ্কার উত্তর নেই কারো কাছে।

কলমে:
আসফাক
ফারাক্কা, মুর্শিদাবাদ