বিশ্বের ১০০ জন প্রভাবশালীর তালিকায় তাঁর নাম, যদি দাবি পূরণ হত তাহলে বেশি খুশি হতাম: বলছে দাদী

বিশ্বের ১০০ জন প্রভাবশালীর তালিকায় তাঁর নাম, যদি দাবি পূরণ হত তাহলে বেশি খুশি হতাম: বলছে দাদী

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: দিল্লির শাহিনবাগে নাগরিকত্ব আইন বিরোধী ধরনায় অংশ নিয়ে শিরোনামে উঠে এসেছিলেন ৮২ বছরের ‘দাদি’ বিলকিস। সবাইকে রীতিমতো চমকে দিয়ে প্রথম সারির ‘টাইম’ ম্যাগাজিনে বিশ্বের ১০০ জন প্রভাবশালীর তালিকায় নিজের নাম তুলে নিয়েছেন তিনি। এই অবিশ্বাস্য কীর্তির পর স্বাভাবিকভাবেই তিনি খুশি। তবে তাঁর কোনও উচ্ছ্বাস নেই বললেই চলে। বিলকিস ‘দাদি’ বলছেন, যদি দাবি পূরণ হত তাহলে বেশি খুশি হতেন তিনি।

নিজের দুই বান্ধবী আসমা খাতুন (৯০) এবং শর্বরী (৭৫)-র সঙ্গে এসে প্রত্যেকদিন শাহিনবাগের বিক্ষোভ স্থলে যোগ দিতেন বিলকিস। ডিসেম্বর মাসে দিল্লির হাড় কাঁপানো ঠান্ডাও দমিয়ে দিতে পারেনি তাঁকে। রোজ শাহিনবাগে গেলেই দেখা মিলত এই ‘দিদা’দের। খুব শীঘ্রই সোশ্যাল মিডিয়াতেও জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন বিলকিস।

বৃহস্পতিবার টাইম ম্যাগাজিনে বিশ্বের ১০০ জন প্রভাবশালীর তালিকায় নাম আসার পর কী প্রতিক্রিয়া দিয়েছিলেন বিলকিস? তাঁর ছেলে মনজুর আহমেদ বলেন, আমরা যখন মা’কে বললাম উনি খালি বললেন, ‘আচ্ছা’। টাইম ম্যাগাজিনের তালিকায় নাম আসায় পরিবার উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়লেও বিলকিস ততটা আনন্দিত নয়। তিনি বরং দাবি পূরণ হলেই বেশি খুশি হতেন।

তবে নিজের প্রতিক্রিয়ায় বিলকিস কাঁপাকাঁপা গলায় বলেন, ‘আমি উপরওয়ালার কাছে কৃতজ্ঞ। তবে যদি আমাদের দাবি পূরণ হত তবে অনেক বেশি খুশি হতাম। ভালো হত যদি সরকার আমাদের দাবিটা মেনে নিত (সিএএ প্রত্যাহার)। কোভিডের জন্য প্রতিবাদ বন্ধ করতে হল, খারাপ লাগছে। আমি ওখানে শেষ পর্যন্ত ছিলাম।’

বিলকিসের ছেলে আহমেদ বলেন, ‘গত ডিসেম্বরে প্রবল ঠান্ডায় একবার অসুস্থও হয়ে পড়েছিলেন মা, জ্বর এসেছিল। কিন্তু প্রতিবাদ মঞ্চে অংশ নেওয়া কখনও বন্ধ করেননি।’ বিলকিস ছাড়াও তাদের পরিবারের প্রত্যেকেই সিএএ বিরোধী প্রতিবাদে অংশ নিয়েছিলেন বলে জানান আহমেদ। যেহেতু তারা যৌথ পরিবার, তাই প্রত্যেক মহিলারাই অংশ নেন আন্দোলনে।