গুজরাটে ২০ বছর পর বেকসুর খালাস ১২৪ জন সিমি (SIMI) সদস্য

    গুজরাটে ২০ বছর পর বেকসুর খালাস ১২৪ জন সিমি (SIMI) সদস্য

    নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: দীর্ঘ ২০ বছর পর বেকসুর খালাস পেলেন স্টুডেন্টস ইসলামিক মুভমেন্ট অফ ইন্ডিয়া (SIMI) র ১২৪ জন সদস্য। উল্লেখ্য ২০০১ সালের ২৭ শে ডিসেম্বর গুজরাট থেকে মিথ্যা মামলায় UAPA আইনে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছিল। গুজরাটের স্থানীয় কোর্ট তাদের নির্দোষ হিসাবে প্রমাণ করেছে।

    রিপোর্ট অনুসারে, তারা সেখানে ‘সংখ্যালঘু শিক্ষা’ শীর্ষক তিন দিনব্যাপী সেমিনারে জড়ো হয়েছিলেন। আটককৃতদের মধ্যে মুসলিম সম্প্রদায়ের কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় নেতা অন্তর্ভুক্ত ছিলেন যারা কোনওভাবেই সিমির সাথে সম্পর্কিত নয়।

    আদালত ২০ বছর পরে প্রমাণের অভাবে আমাদের “সম্মানজনক মুক্তি” দিয়েছে, তবে আমার প্রশ্নটি তাদের সম্পর্কে যারা আমাদের জড়িত করেছিল এবং সেই সমস্ত বছর ধরে আমাদের এবং আমাদের পরিবারকে কষ্ট দিয়েছে তাদের কি কিছু হবেনা? আমরা প্রায় এক বছর জেলে ছিলাম এবং জামিনের পরেও আমাদের মাসিক ভিত্তিতে আদালতে হাজিরা দিতে হতো ” বলেছেন সিমির প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক জিয়াউদ্দিন সিদ্দিকী।

    মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার এবং পেন্টাগনে হামলার পরে ‘সন্ত্রাসবাদের’ বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক পরিবেশের সুযোগ নিয়ে ২০০১ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর সংগঠনটি নিষিদ্ধ হওয়ার পরে সিমি ক্যাডারদের সেখানেই প্রথম ব্যাপকভাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

    গ্রেপ্তার হওয়া যুবকরা ভারতের ১০ টি রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত। সর্বাধিক সংখ্যক ৪৪ জন ছিলেন মহারাষ্ট্রের, তারপরে গুজরাট ২৬, মধ্য প্রদেশ ১৩, কর্ণাটক ১১, উত্তর প্রদেশ ১০, রাজস্থান ৯, পশ্চিমবঙ্গ ৪, তামিলনাড়ু ৪, বিহার ২ এবং ছত্তিসগড় ১।

    প্রসঙ্গত, সন্ত্রাস ছড়ানোর মিথ্যা অভিযোগে মুসলিম যুবকদের গ্রেফতার হওয়া ও তারপর তাঁদের জেল খাটার ঘটনা আগেও ঘটেছে।