রাতেই গৃহবন্দি করা হল মেহেবুবা মুফতি ও ওমর আব্দুল্লাকে; বন্ধ স্কুল কলেজ, ইন্টারনেট পরিসেবা

    রাতেই গৃহবন্দি করা হল মেহেবুবা মুফতি ও ওমর আব্দুল্লাকে; বন্ধ স্কুল কলেজ, ইন্টারনেট পরিসেবা

    নিউজ ডেস্ক, বঙ্গ রিপোর্টঃ মধ্যরাতেই কাশ্মীরের রাজনীতিতে বড়সড় পরিবর্তন। রবিবার রাত সাড়ে বারোটা নাগাদ গৃহবন্দি করা হল জম্মু-কাশ্মীরের প্রাক্তন দুই মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লা এবং মেহবুবা মুফতি সহ সাজ্জাদ লোনক।

    কেন্দ্রের বিজেপি সরকার কি বড়সড় আঘাত হানতে চলেছে জঙ্গিদের উপর, নাকি ৩৫ এ অথবা ৩৭০ ধারা তুলে দেওয়ার জন্যই এই পরিকল্পনা প্রশ্ন উঠছে! আজ সকাল সাড়ে নটায় মোদির বাসভবনে জরুরি ক্যবিনেট মিটিং ডাকা হয়েছে, সেখানেই বড়সড় কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে। জম্মু ও কাশ্মীরের রাজ্যপাল সত্যপাল মালিক জানিয়েছেন, কোন কিছু গোপনীয় ভাবেই সিদ্ধান্ত হবেনা, যা কিছু চূড়ান্ত সংসদে আলোচনা করেই হবে। এদিকে কাশ্মীরে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ইন্টারনেট ও কেবল টিভি পরিষেবা ও স্কুল কলেজ।

    এই ঘটনার তীব্র সমালোচনা করেন রাজ্যে দুই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহেবুবা মুফতি ও ওমর আব্দুল্লা। মেহেবুবা মুফতি টুইট করে বলেন,  “আমাদের মতো যারা নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের এ ভাবে গৃহবন্দি করা হলো। জম্মু ও কাশ্মীরের মানুষের কী ভাবে কণ্ঠরোধ করা হচ্ছে তা দেখছে সমগ্র বিশ্ব।” ওমর আবদুল্লা টুইটে লিখেছেন, “আমার মনে হচ্ছে আমাকে গৃহবন্দি করা হচ্ছে্। যা ভাগ্যে আছে হবে, সকলের সঙ্গে আবার দেখা হবে। আল্লাহ আমাদের রক্ষা করুন।”

    একইভাবে ক্ষোভ উগরে দেন ওমর আব্দুল্লাও, তিনি বলেন, “জানি না আমাদের রাজ্যের ভাগ্যে কী আছে। কাশ্মীর তো বটেই, কার্গিল, লাদাখ ও জম্মুর মানুষদেরও বলছি, আপনারা শান্ত থাকুন।”

    এদিকে, চলতি উত্তেজনার পরিপ্রেক্ষিতে ভূস্বর্গের নিরাপত্তা আরও জোরদার করা হয়েছে। রাজ্য সচিবালয়, পুলিশের সদর দফতর, বিমানবন্দর, বিভিন্ন কেন্দ্রীয় সরকারি দফতর-সহ কাশ্মীরেরে সংবেদনশীল স্থানে মোতায়েন করা হয়েছে সশস্ত্র বাহিনী।

    এইঘটনার তীব্র সমালোচনা করেন দেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতা, কংগ্রেস নেতা শশী থারুর ট্যুইটারে সমালোচনা করে লেখেন, কাশ্মীরে ঠিক হচ্ছেটা কী? কাশ্মীরি নেতারা কোনও অন্যায় না করা সত্ত্বেও তাঁদের বন্দি করা হচ্ছে কেন?