কেরালায় কাজে গিয়ে নিখোঁজ আশিকুলের পচাগলা মৃতদেহ উদ্ধার: অভিযুক্ত পরেশ মণ্ডল গ্রেফতার

কেরালায় কাজে গিয়ে নিখোঁজ আশিকুলের পচাগলা মৃতদেহ উদ্ধার: অভিযুক্ত পরেশ মণ্ডল গ্রেফতার

 

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: মুর্শিদাবাদ জেলার সাগরদিঘির কাবিলপুরের মথুরাপুরের বাসিন্দা আশিকুল রাজমিস্ত্রির কাজে গিয়েছিলেন কেরালার কাননুর জেলায়। সেখান থেকে ২৮ জুন সোমবার নিখোঁজ হন আশিকুল ইসলাম নামের এক যুবক।

 

স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে আশিকুল কেরালার কান্নুর জেলার ঈরুক্কুর থানার কুত্তব জনকশে থাকত। সেখানে প্রায় কাছাকাছি জায়গায় কাজ করতেন।

রাজমিস্ত্রীর কাজে সেখানে কয়েক কিলোমিটার দূরে থাকত অসিকুলের ভাই মোমিন। আশিকুলের সাথে থাকত দুই জন পরেশ মন্ডল ও গনেশ মন্ডল।

 

২৮ শে জুন থেকে আশিকুল নিখোঁজ। স্থানীয় থানায় নিখোঁজ ডাইরি করা হয়। সোশ্যাল মিডিয়া সহ বিভিন্ন জায়গায় নিখোঁজকে খুঁজার কাজ শুরু হলেও কোন ভাবেই খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। হঠাৎ নিখোঁজ যাওয়া এলাকার পুলিশের মাধ্যমে জানা যায় আশিকুল ইসলামকে তার দুই সহকর্মী পরেশ মন্ডল ও গনেশ মন্ডল খুন করে নির্মীয়মান বিল্ডিং এর সিঁড়ির তলায় গর্ত করে আশিকুলের মৃত্যু দেহ লুকিয়ে রেখে তার উপর কংক্রিটের ঢালাই করে দেওয়া হয়। কেরল পুলিশের তৎপরতায় আশিকুলের পচাগলা মৃত্যু দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে।

 

শুক্রবার পরেশ মণ্ডলকে জেরা করা হলে পরেশ মণ্ডলের মুখ থেকে বন্ধু আসিকুলকে খুনের সব তথ্য বেরিয়ে আসে। অভিযুক্ত দুইজনের  কঠোরতম শাস্তি তথা ফাঁসির দাবি জানিয়েছেন আশিকুলের বাবা নজরুল ইসলাম। আশিকুলের হত্যাকাণ্ডের খবর শোনার পর সমগ্র সাগরদিঘি জুড়ে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। আসিকুলের নৃশংস হত্যাকান্ডের মূল পরেশ মণ্ডল গ্রেফতার হলেও অপর খুনি গণেশ মণ্ডল পলাতক।