মমতা ব্যানার্জির গাদ্দার ইস্যু: জেতার আগেই বিজেপির দিকে যাওয়ার ভাবনা রায়গঞ্জের তৃণমূল প্রার্থীর

মমতা ব্যানার্জির গাদ্দার ইস্যু: জেতার আগেই বিজেপির দিকে যাওয়ার ভাবনা রায়গঞ্জের তৃণমূল প্রার্থীর

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: দলীয় বিধায়ক বিক্রি হয়ে যাবে দলের ভিতরের গাদ্দারদের বিজেপি টাকা দিয়ে কিনে নেবে এই আশঙ্কায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন ২০০-র বেশী আসনে জেতানোর জন্য আবেদন করছেন দিনহাটায়। ঠিক সেই দিনেই উত্তর দিনাজপুর তৃণমুল কংগ্রস সভাপতি তথা রায়গঞ্জ বিধানসভার তৃণমুল প্রার্থী কানাইয়ালাল আগরওয়াল বলেন, জয়লাভ করলে পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে আবার সিদ্ধান্ত নেবেন। তবে এই দলবদলের সিদ্ধান্ত হবে রায়গঞ্জ বাসীর সঙ্গে কথা বলে। যেই প্রক্রিয়ায় ইসলামপুরে বিধায়ক থাকা কালীন কংগ্রেস ছেড়ে তিনি তৃণমূলে এসেছিলেন।

গত লোকসভা নির্বাচনের সময় এই আগারওয়াল রায়গঞ্জ কেন্দ্রে তৃণমূলের প্রার্থী ছিলেন। তার একটি ভিডিও সোশ্যাল-মিডিয়ায়-ভাইরাল হয় যাতে বলতে শোনা যাচ্ছিল যে সিপিএমের মহঃ সেলিমকে হারাতে প্রয়োজনে বিজেপিকে ভোট দেবে। আগাগোড়া আরএসএস পন্থী এই আগারওয়ালের কেন্দ্র থেকে সত্যি সত্যি হারে মহঃ সেলিম জয় পায় বিজেপির দেবশ্রী।

এবারও কোনও আলটপকা মন্তব্য নয়। রীতিমতো তর্ক থামাতে যুক্তি দিয়েই একথা বলেন কানাইয়াবাবু। নমিনেশন পর্ব মিটে যাওয়ার পর শুক্রবার উত্তর দিনাজপুর প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন রায়গঞ্জের তৃণমুল কংগ্রেস প্রার্থী কানাইয়ালাল আগরওয়াল।

সেই প্রেস কনফারেন্স এ সাংবাদিকরা প্রশ্ন করেন, ২০১৬ সালে কংগ্রসের টিকিটে জিতে আপনি তো উন্নয়নের স্বার্থে তৃণমুল কংগ্রসে চলে যান। এবার যদি রায়গঞ্জে জেতেন আর সরকার অন্যদলের হয়। সেক্ষেত্রে আপনি উন্নয়নের জন্য কি করবেন? এই প্রশ্নের উত্তরে কানাইয়ালাল বাবু বলেন, ‘এইরকম পরিস্থিতি যদি আসে তবে সেই ক্ষেত্রে ইসলামপুরের বাসিন্দাদের কথা শুনে যেমন দলবদলের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম, ঠিক সেইভাবেই রায়গঞ্জের মানুষের কথাশুনেই পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেব। কানাইয়ালাল বাবুর এই কথাতে ইতিমধ্যেই রায়গঞ্জের রাজনৈতিক মহলে আলোচনার ঝড় উঠেছে।

 

২২৫-২৩০ টি আসনে জিততে হবে! না হলে গাদ্দারদের কিনে নেবে বিজেপি: মন্তব্য খোদ মমতা ব্যানার্জির