২২৫-২৩০ টি আসনে জিততে হবে! না হলে গাদ্দারদের কিনে নেবে বিজেপি: মন্তব্য খোদ মমতা ব্যানার্জির

২২৫-২৩০ টি আসনে জিততে হবে! না হলে গাদ্দারদের কিনে নেবে বিজেপি: মন্তব্য খোদ মমতা ব্যানার্জির

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: রাজ্যে বিধানসভা ভোটের দ্বিতীয় দফার আগে জমি আন্দোলনের এক গুরুত্বপূর্ণ স্থান সিঙ্গুরে সভা করলেন তৃণমূল নেত্রী। বুধবারের সেই সভা থেকে দলীয় কর্মী-সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আমাদের ২২৫-২৩০টি আসনে জিততে হবে। নয়তো ওরা লক্ষ-লক্ষ, কোটি-কোটি টাকা ছড়িয়ে গদ্দার-মীরজাফরদের কিনে নেবে। তাই অনেক বেশি ভোটে, বেশি আসনে তৃণমূলকে জেতাতে হবে।’

যে বক্তব্যের পর সরগরম রাজ্য রাজনীতি। তাহলে কী তৃণমূল কংগ্রেস দুশোর কম আসন পেলে এবং বিজেপি একশোর বেশি আসন পেলে কোটি কোটি টাকা দিয়ে তৃণমূলের বিধায়কদের কিনে নিয়ে সরকার গঠন করবে গেরুয়া শিবির। রাজারহাটের এক সভায় ISF এর ভাঙড়ের প্রার্থী দলের চেয়ারম্যান নৌসাদ সিদ্দিকী তো বলেই ফেলেছেন এখানকার তৃণমূল প্রার্থী জিতলেই দিল্লি গিয়ে গেরুয়া শিবিরে যোগ দেবেন ওনার দিল্লি যাওয়ার ফ্লাইটের টিকিট কাটা আছে।

শুরু হয়েছে আরও জলঘোলা। প্রশ্ন উঠছে মমতা ব্যানার্জি যাঁদের টিকিট দিয়েছেন তাঁদের উপরেও কি পুরোপুরি আস্থা রাখতে পারছেন না তিনি? মমতা ব্যানার্জি কী হতাশা থেকে একথা বলছেন। তার মানে এবারেও কি শুভেন্দু, রাজীবদের মতো গদ্দারদের টিকিট দিয়েছেন? সেজন্য কী তিনি এখন তাঁর জয়ী বিধায়কদের প্রতিও আস্থা রাখতে পারছেন না। শেষমেষ যারা বিজেপিকে রুখতে তৃণমূল কংগ্রেসের উপর ভরসা করে দুহাত উজাড় করে ভোট দেবেন তাদের কী আশাহত করবে মমতা ব্যানার্জির দলের জেতা বিধায়করা। মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের পর রাজ্যের রাজনৈতিক আকাশে ঘুরছে এই কঠিন প্রশ্ন।