‘নেতা হলেই কাউকে গাড়ির নীচে পিষে ফেলা যায় না’- লখিমপুর খেরিতে কৃষক হত্যার সমালোচনায় খোদ বিজেপি

‘নেতা হলেই কাউকে গাড়ির নীচে পিষে ফেলা যায় না’- লখিমপুর খেরিতে কৃষক হত্যার সমালোচনায় খোদ বিজেপি

 

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: লখিমপুর খেরির ঘটনা দেশবাসীকে স্তম্ভিত করে! মন্ত্রী ছেলের গাড়ি বিক্ষোভরত কৃষকদের পিষে দিয়ে যায়। এই অভূতপুর্ব নির্মম ঘটনার বিরুদ্ধে সরব হয়েছে দেশের বিভিন্ন মহলের সংবেদনশীল মানুষ। জাতীয় রাজনীতি এখন উত্তাল। এবার আবার খোদ বিজেপির ঘরের ভিতর থেকে প্রতিবাদের স্বর শোনা গেল। উত্তরপ্রদেশের বিজেপি প্রধান স্বতন্ত্র দেব সিং লখিমপুর খেরির ঘটনার প্রতিবাদে মুখ খুললেন।

এর আগে লখিমপুর খেরির ঘটনা নিয়ে বিজেপির ভেতর থেকে প্রথম প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন তিনবারের দলীয় সাংসদ বরুণ গান্ধী। এবার খেরির ঘটনা প্রসঙ্গে রাজ্য বিজেপি প্রধান বলেন – একজন রাজনৈতিক নেতা হওয়ার অর্থ এই নয় যে কেউ গাড়ি দিয়ে কাউকে পিষে দিতে পারেন।

সাংসদ বরুণ গান্ধীর পর এই প্রথম লখিমপুরের ঘটনার বিরুদ্ধে কোনও বিজেপি নেতা মুখ খুললেন। গত ৩ অক্টোবরের ওই ঘটনায় চার কৃষক সহ মোট ন’জনের মৃত্যু হয়।

রবিবার সন্ধ্যায় লখনউতে দলের সংখ্যালঘু ফ্রন্টের রাজ্য কার্যনির্বাহী সমিতির উদ্বোধনী অধিবেশনে ইউপি বিজেপি প্রধান স্বতন্ত্র দেব সিং দলীয় কর্মীদের উদ্দেশে বক্তব্য রাখবার সময় বলেন – “আচরণের ভিত্তিতে নির্বাচন জিততে হবে। রাজনীতি হল আপনার সমাজ, আপনার জাতির সেবা করা। এখানে কোন জাতি এবং ধর্ম জড়িত নয়। একজন রাজনৈতিক নেতা হওয়ার অর্থ এই নয় যে আপনি লুট করবেন। এর অর্থ এই নয় যে আপনি কাউকে আপনার ফরচুন গাড়ি দিয়ে চাপা দেবেন। আমরা এই দলে আছি গরিব মানুষের সেবা করার জন্য। রাজনীতি আংশিক সময়ের কাজ নয়”।
সিংয়ের এই বক্তব্যের পরে মনে করা হচ্ছে যে বিজেপির অন্দর থেকেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অজয় মিশ্র টেনির ছেলে আশিষ মিশ্রের দিকে সরাসরি আঙুল তোলা হচ্ছে। যদিও বরুণ গান্ধী এবং স্বতন্ত্র সিং ছাড়া প্রকাশ্যে এখনও পর্যন্ত বিজেপির কোনো নেতা এই ঘটনা নিয়ে মুখ খোলেননি। উল্লেখ্য, লখিমপুর খেরিতে গাড়ি চাপা দিয়ে চার কৃষকের হত্যার ঘটনায় আশিস মিশ্র প্রধান অভিযুক্ত।
যদিও লখিমপুর খেরির ঘটনা নিয়ে বিরোধিতার পরেই স্বতন্ত্র দেব সিং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের প্রশংসা করেন এবং বলেন: “দরিদ্র পটভূমির দুজন ব্যক্তি ভারতের প্রধানমন্ত্রী এবং উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী যখন গরিবদের জন্য ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খোলেন তখন কেউ মাথা ঘামায়নি। না তারা দুজনই রাজ্যে সাত লাখ বাড়ি নির্মাণ করেছেন। কেউ কি ভোট এবং ধর্ম সম্পর্কে প্রশ্ন তুলেছিলেন? মোদির নেতৃত্বে অন্য দেশে টিকা পাঠানো হচ্ছে। গ্যাস, বিদ্যুৎ সংযোগ এবং টয়লেটের ব্যবস্থা করায় মানুষের জীবন বদলে যাচ্ছে।”

লখিমপুরে গাড়ি চাপা দিয়ে কৃষক হত্যা মামলায় অনেক টানাপড়েনের পর শেষমেশ শনিবার সকালে পুলিশের কাছে হাজিরা দেন মূল অভিযুক্ত আশিস মিশ্র। দীর্ঘ ১২ ঘণ্টার জেরার পরে গ্রেফতার করা হয় তাঁকে। এর পর রবিবার সকালে তাঁকে বিশেষ আদালতে তোলা হলে ১৪ দিনের জন্য বিচারবিভাগীয় আদালতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

পাশাপাশি খোঁজ শুরু হয়েছে আশিসের এক বন্ধুর খোঁজ, যে এই ঘটনায় জড়িত বলে জানতে পেরেছে পুলিশ। সেই বন্ধু আবার লখিমপুরের প্রাক্তন সাংসদ, প্রয়াত অখিলেশ দাসের ভাইপো অঙ্কিত দাস।

ধরা পড়ার পরে আশিস পুলিশের কাছে দাবি করেছেন, ঘটনার সময়ে তিনি অনুষ্ঠানেই হাজির ছিলেন। গাড়ি নিয়ে কোথাও যাননি। তিনি বলেন, “ওই থর জিপটি আমার। আমাদের ড্রাইভার হরিওম মিশ্র গাড়ি চালাচ্ছিলেন। আমার বন্ধু এবং বিজেপি কর্মী অঙ্কিত দাস ওই গাড়ির মালিক। তিনি গাড়ি দুটি নিয়ে প্রধান অতিথিদের আনতে গিয়েছিলেন। কিন্তু তারপর তিনি কোথায় গেছেন আমি জানি না। ঘটনার পর থেকে অঙ্কিত আমার সঙ্গে আর যোগাযোগ করেননি।”