মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার নামে শুধুই রক্তপাত! শান্তি প্রতিষ্ঠার নামে বিশ্বব্যাপী যুদ্ধে আমেরিকার হাতে ৯ লক্ষ মানুষের মৃত্যু

মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার নামে শুধুই রক্তপাত! শান্তি প্রতিষ্ঠার নামে বিশ্বব্যাপী যুদ্ধে আমেরিকার হাতে ৯ লক্ষ মানুষের মৃত্যু

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আমেরিকার তথাকথিত যুদ্ধ বিশ্বজুড়ে ৯ লক্ষ মানুষের জীবন কেড়ে নিয়েছে এবং গত দুই দশকে চালানো যুদ্ধগুলোতে আমেরিকার খরচ হয়েছে আনুমানিক ৮ ট্রিলিয়ন ডলার। সম্প্রতি যুদ্ধ বিষয়ক একটি নতুন প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে এসেছে।

আফগানিস্তান থেকে আমেরিকার লজ্জাজনক ও বিপর্যয়কর প্রত্যাহার শেষে ব্রাউন ইউনিভার্সিটির কস্টস অফ প্রজেক্ট তৈরি করা একটি প্রতিবেদনে দেখা গেছে আমেরিকার চাপানো যুদ্ধের ফলে ৮০ দেশের আনুমানিক ৮ লক্ষ ৯৭ হাজার থেকে ৯ লক্ষ ২৯ হাজার মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছে মার্কিন সামরিক সদস্য, সহযোগী যোদ্ধা, অসামরিক, সাংবাদিক ও মানবিক সহায়তা কর্মীরা। তবে যুদ্ধের কারণে রোগ, স্থানচ্যুতি এবং খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির অভাব সহ বিভিন্ন কারণে ঘটা মৃত্যুগুলো এই পরিসংখ্যানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।

৮০ টিরও বেশি দেশে এই লড়াই চলছে উল্লেখ করে কন্টস অফ ওয়ারের সহ-পরিচালক ক্যাথরিন লুৎজ বলেন যুদ্ধগুলো ছিল দীর্ঘ এবং জটিল। পাশাপাশি এগুলো ভয়াবহ ব্যর্থ হয়েছে। পেন্টাগন এবং মার্কিন সামরিক বাহিনী এখন ফেডারেল বাজেটের সিংহভাগ শোষণ করছে যা অধিকাংশ মানুষই জানে না। সামরিক প্রতিবেদনে আরও বলা হয় আফগানিস্তান ইরাক পাকিস্তানের যুদ্ধের জন্য আমেরিকার আনুমানিক ৮ ট্রিলিয়ন ডলার খরচ হয়েছে। এরমধ্যে ২.৩ ট্রিলিয়ন ডলার খরচ হয়েছে আফগানিস্তান এবং পাকিস্তানকে কেন্দ্র করে

একটানা ২০ বছর তথাকথিত সন্ত্রাস বিরোধী অভিযানের নামে আফগানিস্তানে অবস্থান করে আমেরিকার সেনাবাহিনী। এই দীর্ঘ সময়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে তাদের মেয়াদ শেষ করেছেন বুশ, ওবামা, ট্রাম্প। নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে জো বাইডেন এসে আট মাসের মধ্যে সমস্ত সেনা প্রত্যাহার করেছেন। তার সেনা প্রত্যাহারের বিষয়টি দেশ-বিদেশে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়ে।

কিন্তু নিজের অবস্থানে অনড় থেকে জো বাইডেন জানান এ সিদ্ধান্ত আরও অনেক আগেই নেওয়া উচিত ছিল। ভবিষ্যতে আর কখনো আমেরিকাকে যুদ্ধের দিকে ঠেলে দিতে নারাজ বাইডেন। তার কথায়ে এখন থেকে মার্কিন সেনাকে কোন অনর্থক যুদ্ধে অংশ নিতে দেওয়া হবে না। কারণ যুদ্ধ শুধু ক্ষতির প্রতীক। বাইডেনের এমন মন্তব্যের সমালোচনায় সরব হয়েছে আমেরিকার অনেক জাতীয়তাবাদী নেতা তারা বলেছেন বাইডেন অক্ষম, আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার চলাকালীন আমেরিকার মান-ইজ্জত ধুলোয় মিশিয়ে দিয়েছেন তিনি।

প্রতিবেদন: পুবের কলম