দেশে ফেরার অনুমতি: বিদেশী তাবলীগিদের দশ বছর ভারতে ঢোকা নিষিদ্ধ করল আদালত

দেশে ফেরার অনুমতি: বিদেশী তাবলীগিদের দশ বছর ভারতে ঢোকা নিষিদ্ধ করল আদালত

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: মাদ্রাজ হাইকোর্টের পর এবার কর্ণাটক হাইকোর্ট। এদেশে আটকে থাকা বিদেশী তাবলীগিদের দেশে ফেরার অনুমতি দিল। ভিসা আইন লঙ্ঘন করার অপরাধে সংশ্লিষ্ট দফতরে জরিমনা দিয়ে ফিরতে হবে দেশে। সেই সঙ্গে আগামী দশ বছর তাঁদের ভারতে প্রবেশ করার ক্ষেত্রে নিষেদ্ধাজ্ঞ জারি করেছে কর্ণাটক হাইকোর্ট।

প্রসঙ্গত, দিলি­র নিজামুদ্দিন মারকাজে তাবলীগি ইজতেমায় যোগ দিয়ে করোনা আবহের সময় আটকে পড়েন বিদেশী ইসলাম ধর্মপ্রাণ মানুষেরা। সেই সময় করোনা মোকাবিলায় দেশে লকডাউন শুরু হয়ে যায়। যার কারণে দেশে ফিরতে পারেনি বিদেশী তাবলীগিরা। দীর্ঘদিন আটকে থাকার ফলে ভারতে থাকার ভিসার মেয়াদও শেষ হয়ে যায় তাঁদের।

লকডাউনের জেরে ভিসার মেয়াদ বাড়াতে পারেননি তাঁরা। এই পরিস্থিতিতে ভিসা আইন লঙ্ঘন করার দায়ে তাদের প্রায় সকলে গ্রেফতার হয়। এই মুহুর্তে বিদেশী তাবলীগিরা দেশের বিভিন্ন জেলে বন্দি রয়েছেন। তাঁদের মধ্যে কর্ণাটকে রয়েছেন ৯ জন বিদেশী। এই অবস্থায় বিদেশী তাবলীগিদের আইনি সহযোগিতা দিতে এগিয়ে আসে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ। এই সংগঠনের তরফে ফারহিন হোসেন বিদেশী তাবলীগিদের দেশে ফেরানোর জন্য আইনি সহায্য দিতে মামলা করেন।

কর্ণাটকের জেলে বন্দি ৯ বিদেশীকে জেল মুক্ত করে দেশে ফেরানোর জন্য সেই রাজ্যের হাইকোর্টে মামলা করেন ওই ব্যক্তি। গত ৫ আগস্ট সেই মামলার রায়ে কর্ণাটক হাইকোর্ট জানিয়েছে, যে ৯ তাবলীগি কর্ণাটক রয়েছেন তারা নিজ দেশে ফিরতে পারবেন। তবে তারা আগামী দশ বছর ভারতে প্রবেশ করতে পারবেন না।

কর্ণাটকের জেলে আটকে থাকা ৯ বিদেশী তাবলীগির ভিসা ছিল ‘ই ট্যুরিস্ট’ ভিসা। একমাত্র মালয়েশিয়ার অধিবাসীরা ছাড়া এই ভিসায় ধর্মীয় প্রচার করতে পারে না অন্য কোনও দেশের নাগরিক। ভিসা আইন লঙ্ঘনের সঙ্গে ওই তাবলীগিদের এটাও একটা অপরাধ। এমনটাই মনে করছে কর্ণাটক হাইকোর্ট। যদিও, মামলাকারীর আইনজীবী মুহাম্মদ তাহির বলেন, ভিসার কোথাও বলা নেই তারা ধর্মীয় বক্তব্য রাখতে পারবেন না। এ ব্যাপারে তিনি দুটি হাইকোর্টের মামলার রায় তুলে ধরেন। তবে, এই মামলায় বিচারপতি কৃষ্ণ এস দীক্ষিত বলেন, ভিসা আইন লঙ্ঘনের দায়ে গ্রেফতারকৃত বিদেশি তাবলীগীরা দেশে ফিরতে পারবেন। তার জন্য সংশ্লিষ্ট দফতরে জরিমানা দিতে হবে।

উলে­খ্য, জুন মাসে মাদ্রাজ হাইকোর্ট বিদেশি তাবলীগীদের জেলমুক্ত করে নিজ দেশে ফেরার অনুমতি দিয়েছিল।
যদিও, শুনানির পর কর্ণাটক হাইকোর্ট তার রায়ে ৯ বিদেশি তাবলীগীকে দেশে ফেরার অনুমতি দিলেও ভারতে প্রবেশে ১০ বছর নিষিদ্ধ বলে রায় দেন।