আর্সেনিক দূষণ গবেষণায় মালদার বিজ্ঞানী অধ্যাপক আহমারুজ্জামান এখন বিশ্বসেরা

আর্সেনিক দূষণ গবেষণায় মালদার বিজ্ঞানী অধ্যাপক আহমারুজ্জামান এখন বিশ্বসেরা

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: আর্সেনিক দূষণের মাত্রা নির্ধারণ নিয়ে বহুদিন ধরে গবেষণা করে আসছেন মালদার অধ্যাপক আহমারুজ্জামান। আর সেই গবেষণার সৌজন্যেই বিশ্বসেরা বিজ্ঞানীদের তালিকায় জায়গা করে নিলেন মালদার কালিয়াচকের বাসিন্দা রসায়নের অধ্যাপক আহমারুজ্জামান। বিশ্বসেরা বিজ্ঞানীদের তালিকা অন্যতম স্থান পাওয়ার পরেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি টুইট বার্তায় তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। পাশাপাশি কেন্দ্রীয় শিক্ষা দপ্তর থেকেও ওই অধ্যাপককে অভিনন্দন জানানো হয়েছে। এই খবরে খুশির হাওয়া বইছে মালদা কালিয়াচকে।

কালিয়াচক থানার জালালপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের কান্ধী গ্রামের বাসিন্দা আহমারুজ্জামান এখন শিলচর এনআইটির অধ্যাপক ‌। তিনি রসায়ন বিষয়ক আলোচনায় আন্তর্জাতিক খ্যাতি পেয়েছেন। বর্তমানে ন্যানো বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে গবেষণা করছেন। উত্তর-পূর্ব ভারত সহ পশ্চিমবঙ্গের বেশ কয়েকটি জেলায় আর্সেনিক দূষণ বিরাট সমস্যা। ভূগর্ভস্থ জলের আর্সেনিক দূষণ নিরাময়ে তার গবেষণা অব্যাহত। আন্তর্জাতিক সংস্থা হু আর্সেনিক দূষণের পরিমাণ নির্ধারণ করেছে। তার থেকেও কম দূষণ নির্ধারণ নিয়ে বর্তমানে তিনি কাজ করছেন। পাশাপাশি বজ্য থার্মোসেটিং ও থার্মোপ্লাস্টিককে জ্বালানি হিসেবে রূপান্তরিত করার পদ্ধতি নিয়ে অনুসন্ধান চলছে। এতেই বিশ্বসেরা বিজ্ঞানীদের তালিকাই নিজের নাম নথিভুক্ত করতে পেরেছেন।

সম্প্রতি স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় বিশ্বের বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিজ্ঞানীদের তালিকা প্রকাশ করেছে। সেই তালিকায় গোটা বিশ্বের প্রায়১ লক্ষ ৬৯ হাজার ৬৮৩জন বিজ্ঞানী স্থান পেয়েছে। যার মধ্যে ১৫০০ জন ভারতীয় বিজ্ঞানীর নাম রয়েছে। রসায়ন প্রযুক্তি বিভাগে সারাবিশ্বে বিজ্ঞানীদের মধ্যে ১১৩ তম স্থান পেয়েছে কালিয়াচকের এই অধ্যাপক। আখতারুজ্জামান।