সন্দেহর বশে দলিত যুবককে বেদম প্রহার, পুড়িয়ে মারার চেষ্টা যোগীর রাজ্যে

    সন্দেহর বশে দলিত যুবককে বেদম প্রহার, পুড়িয়ে মারার চেষ্টা যোগীর রাজ্যে

    নিউজ ডেস্ক, বঙ্গ রিপোর্ট, উত্তর প্রদেশঃ সন্দেহের বশে দলিত যুবককে বেদম প্রহার শেষে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর প্রদেশের বারাবাঁকিতে, প্রতাপগড়ের পর বারাবাঁকিতেও দলিত যুবককে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা।

    পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে খবর, বছর আঠাশের সুজিত কুমার নামে ওই যুবক ঘটনার দিন শ্বশুরবাড়ি থেকে ফিরছিলেন তার নিজের বাড়িতে। রঘুপুরা গ্রামের কাছে যখন আসে তখন কুকুরের তাড়া খেয়ে, একটি বাড়ির ছাউনির নিচে আশ্রয় নেন। রাতের বেলা অচেনা এক যুবককে দেখে বেরিয়ে আসে কিছু লোকজন। ওই যুবককে জেরা শুরু করে তারা সঙ্গে চলতে থাকে কিল-চড়ও, হট্টগোলের বেরিয়ে আছে গ্রামের আরো কিছু লোকজন। সবাই মিলে বেদম প্রহার শুরু করে সুজিত কে, ওই যুবক গ্রামবাসীদের কে জানান তিনি চোর বা অন্য কিছু নন খেটে খাওয়া একজন সাধারন মানুষ তার স্ত্রীকে আনতে শ্বশুর বাড়িতে গিয়েছিলেন সেখান থেকেই ফিরছিলেন। কিন্তু ওই যুবকের কথা কেউ কর্ণপাত করেনি বিবস্ত্র করে প্রচন্ড হারে প্রহার করতে শুরু করে সকলে মিলে, শেষে তার শরীরে পেট্রোল ঢেলে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করে।

    এই ঘটনার খবর পৌঁছে যায় পুলিশের কাছে পুলিশ সঙ্গে সঙ্গে রঘুপুরা গ্রামে পৌঁছে অর্ধদগ্ধ অবস্থায় ওই যুবককে উদ্ধার করে লখনৌয়ের হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালের চিফ মেডিকেল সুপার আশুতোষ দুবে জানান, পা দুটো পুরো ঝলসে গেছে শরীরের অন্যান্য অংশ ভালোই পুড়েছে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

    পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, তপশিলি জাতি ও উপজাতি আইনে অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তির বিরুদ্ধে গণপিটুনি ও খুনের চেষ্টার অভিযোগ দায়ের হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করে বারাবাঁকির পুলিশ, সারান কুমার, উমেশ ও রাম লাখান নামে স্থানীয় তিন অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে। বাকিদের খোঁজে তল্লাশি চলছে।