ইয়াসে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে দিনরাত এক করছে আইমা বিপর্যয় মোকাবিলা টিম

    ইয়াসে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে দিনরাত এক করছে আইমা বিপর্যয় মোকাবিলা টিম

    নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: ইয়াস মেদিনীপুর সহ দক্ষিণবঙ্গের বেশ কিছু অংশকে বিধ্বস্ত করবে, এটা রাজ্যবাসী জেনে গিয়েছিল। জেনেছিল আইমাও। তাদের সদর দপ্তর পূর্ব মেদিনীপুরে। ফলে সংগঠন জরুরী বৈঠক করে বিপর্যয় মোকাবিলা টিমের কাজ ছকে দেয়। ওদের চাবুকের মত নিজস্ব বিপর্যয় মোকাবিলা টিম আছে। এই টিম বন্যায় কাজ করে, আমফানে করেছে, লকডাইন পর্বে কাজ করে।

    ইয়াস দুই মেদিনীপুরকে সহ আশেপাশের জেলাকে বিপর্যস্ত করেছে। সঙ্গে ছিল ভরা কোটালের বান। এলাকাভিত্তিক একশোর ওপর বিপর্যয় মোকাবিলা টিম নিজেদের ভাগ করে নিয়ে কাজ করছে।

    ক. আইমা নিজেদের উদ্যোগে রূপনারায়ণ নদীর ভেঙে যাওয়া ও দুর্বল পাড় বাঁধার কাজ করছে।

    খ. ঘর ভেঙে বিপর্যয়ে পড়া ও প্লাবিত হয়ে পড়া মানুষদের উদ্ধার করে নিরাপদ জায়গায় নিয়ে আসা এবং তাদের চারবেলা খাবারের ব্যবস্থা করছে।

    গ. বিদ্যুৎ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত। তাই সাবমার্সিবল পাম্প থেকে ড্রাম ড্রাম জল তুলে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছে। রিকশভ্যানে জেনারেটর চাপিয়ে নিয়ে গিয়ে বাড়িতে বাড়িতে মোটরের সঙ্গে সংযোগ করে পাণীয় জল ও মোবাইল চার্জের ব্যবস্থা করছে।

    ঘ. সেফ হোমগুলোতে খাবার ও ওষুধপত্র, প্রয়োজনে অক্সিজেন সরবরাহ করছে।

    ঙ. বিদ্যুৎহীন, বাজারহীন অবস্থার কারণে আটকা পড়াদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে নিত্যপ্রয়োজনীয় কার কী দরকার জেনে নিয়ে, সে সব পাঠিয়ে দিচ্ছে।

    চ. পড়ে যাওয়া গাছ কেটে সরানো, ত্রিপল, দড়িদড়া পৌঁছে দেওয়া সহ আরও বহু কাজে দু-তিন জেলায় আইমার কয়েকশো বিপর্যয় মোকাবিলা টিম কাজ করছে। জলে ভিজে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে। এবং কোভিড বিধি মেনে। খিদের সময় নিজেরাই কোনও গাছতলায় বা মাঠে দাঁড়িয়ে মুড়ি-চানা চিবিয়ে নিচ্ছে।