মুখোশ খুলে যাচ্ছে সরকারের! টিকা নিয়ে পুঁজিপতিদের হাত শক্ত করছে মোদি সরকার: আক্রমণ চিদাম্বরমের

    মুখোশ খুলে যাচ্ছে সরকারের! টিকা নিয়ে পুঁজিপতিদের হাত শক্ত করছে মোদি সরকার: আক্রমণ চিদাম্বরমের

    নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: কেন্দ্রের করোনা মোকাবিলা নিয়ে শুরু থেকেই তোপ দেগে আসছে কংগ্রেস। মোদীর বিরুদ্ধে তীব্র আক্রমণ শানিয়ে কখনও মাঠে নেমেছেন সোনিয়া গান্ধী, তো কখনও আবার রাহুল। এবার কেন্দ্রের টিকাকরণ কর্মসূচি নিয়ে চাঁচাছোলা ভাষায় আক্রমণ শানাতে দেখা গেল কংগ্রেস নেতা পি চিদাম্বরমকে। এমনকী সঙ্কটকালে টিকা নিয়ে পুঁজিপতিদের হাতই আদপে শক্ত করতে চাইছে কেন্দ্র, এমনটাই দাবি চিদাম্বরমের।

    এদিকে দ্বিতীয় পর্বের করোনা সংক্রমণের বাড়বাড়ন্তের পরেই ভারত তথা বিশ্বের বিভিন্ন দেশেই দেখা দিয়েছে টিকার আকাল। এমতাবস্থায় কোভিড টিকার ওপর থেকে স্বত্ব তুলে নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিল ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা। এমনকী তাতে সায়ও দেয় আমেরিকা। কিন্তু চিদাম্বরমের দাবি মুখে প্রস্তাব দিলেও এখন সেই অবস্থান থেকে সরে আসছে কেন্দ্র। এতে আদপে সরকারের মুখোশ খুলে আসল চরিত্রটাই বেরিয়ে পড়ছে বলে দাবি তাঁর।

    এদিন টুইট করেই কেন্দ্রের টিকা নীতি নিয়ে একের পর এক তোপ দাগেন এই প্রবীন কংগ্রেস নেতা। অন্যদিকে এদিন নীতি আয়োগের সদস্য তথা ভারতের করোনা টাস্ক ফোর্সের প্রধান ভি কে পালের মন্তব্য ধরেও কেন্দ্রের কঠোর সমালোচনা করেন চিদাম্বরম। তাঁর দাবি কয়েকদিন আগেই কোভ্যাক্সিনের উৎপাদন বৃদ্ধিতে অন্য সংস্থারদের এগিয়ে আসার আবেদন জানান ভি কে পাল। কিন্তু যার পুরো দায়িত্ব দেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে শুধুমাত্র বেসরকারি সংস্থাগুলির হাতে। চিদাম্বরমের দাবি আদপে ব্যবসায়িক স্বার্থ সুনিশ্চিত করতেই এই রাস্তায় হাঁটছে কেন্দ্র।

     

    টিকা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের ডাক
    এদিকে টিকা নীতি নিয়ে কয়েকদিন আগেই কেন্দ্রের বিরুদ্ধে কার্যত বিদ্রোহের ডাক দেন এই প্রবীণ কংগ্রেস নেতা। টিকা প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলিকে নিজেদের ইচ্ছামতো দাম নির্ধারণ করতে দেওয়াতেও মোদী সরকারের তীব্র সমালোচনা করেন তিনি। এমনকী করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে মোদী সরকারের বিরুদ্ধে রাজনীতি করারও অভিযোগ তোলেন তিনি। পাশাপাশি টিকার দামের ক্ষেত্রে দেশ এক দাম নীতি নেওয়ারও দাবি জানান তিনি।

     

    এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনা কবলে পড়েছেন ৩ লক্ষ ৪৩ হাজারের বেশি মানুষ। মারা গিয়েছেন ৪ হাজার করোনা আক্রান্ত। এদিকে এখনও পর্যন্ত দেশে টিকা পেয়েছে মাত্র ১৮ কোটি মানুষ। যার মধ্যে টিকার দুটি ডোজই পেয়েছেন মাত্র ৪ কোটির কাছাকাছি মানুষ। এমতাবস্থায় টিকারপণে গতি আনতে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে দেশে ২০০ কোটির বেশি টিকা ডোজ তৈরির লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছে কেন্দ্র।