সেন্ট্রাল ভিস্তা বন্ধ করে সেই অর্থে ভ্যাকসিন, অক্সিজেন কেনার দাবিতে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি ১২ বিরোধী দলের

    সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প বন্ধ করে সেই অর্থে ভ্যাকসিন, অক্সিজেন কেনার দাবিতে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি ১২ বিরোধী দলের

    নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: অবিলম্বে করোনা পরিস্থিতি সামাল দিতে বিরোধীদের পরামর্শ মানুক কেন্দ্রীয় সরকার৷ এই দাবি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি দিলেন বারোটি বিরোধী দলের নেতা৷ তালিকায় নাম রয়েছে সোনিয়া গান্ধি, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, এম কে স্ট্যালিন, সীতারাম ইয়েচুরি, উদ্ধব ঠাকরে, এইচ ডি দেবগৌড়া, শরদ পাওয়ারের মতো বিরোধী নেতারা৷ চিঠিতে অভিযোগ করা হয়েছে, গত কয়েক মাস ধরে ক্রমাগত বিরোধীদের পরামর্শ উপেক্ষা করেছে সরকার৷ যা জেরে এমন ধ্বংসাত্মক বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে দেশের মানুষ৷

    প্রধানমন্ত্রীকে লেখা চিঠিতে একযোগে গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ মানার দাবি জানিয়েছেন বিরোধীরা৷ যার মধ্যে রয়েছে, দেশের প্রত্যেককে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দেওয়া, ভ্যাকসিন কেনার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ করা, সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প বন্ধ করে সেই অর্থে ভ্যাকসিন, অক্সিজেন কেনার মতো দাবি৷

    প্রধানমন্ত্রীকে লেখা চিঠিতে বিরোধীরা দাবি করেছেন-
    ১. দেশের মধ্যে থেকে হোক বা বিদেশ থেকে, কেন্দ্রীয় ভাবে ভ্যাকসিন কেনার ব্যবস্থা চালু করুক সরকার৷
    ২. অবিলম্বে গোটা দেশ জুড়ে বিনামূল্যে সব বয়সের মানুষকে গণ টিকাকরণের কাজ শুরু করতে হবে৷

    ৩. ভ্যাকসিন উৎপাদন বাড়াতে লাইসেন্স সংক্রান্ত নিয়মের সরলীকরণ৷

    ৪.ভ্যাকসিন কেনার জন্য বাজেট বরাদ্দ করা ৩৫ হাজার কোটি টাকা খরচ করা হোক৷
    ৫. সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্পের নির্মাণ কাজ বন্ধ করে সেই অর্থে ভ্যাকসিন, অক্সিজেন কেনা হোক৷

    ৬. সমস্ত প্রাইভেট ট্রাস্ট ফান্ড, পিএম কেয়ার্স ফান্ডে টাকা থাকা ভ্যাকসিন, অক্সিজেন এবং চিকিৎসা সরঞ্জাম কেনার কাজে ব্যবহার করা হোক৷

    ৭. কাজ হারানো প্রত্যেককে মাসে অন্তত ৬০০০ টাকা দেওয়া হোক৷
    ৮. দরিদ্রদের বিনামূল্যে খাদ্যশস্য বন্টন করা হোক৷ (বিরোধীদের দাবি, কেন্দ্রীয় সরকারের গোডাউনে অন্তত ১ কোটি টন খাদ্যশস্য পচছে৷)

    চিঠির শেষে বিরোধী নেতারা প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে কটাক্ষের সুরে লিখেছেন, সাধারণত বিরোধীদের প্রস্তাব বা পরামর্শের জবাব না দেওয়াটাই দস্তুর বানিয়ে ফেলেছে মোদি সরকার৷ এক্ষেত্রে দেশের মানুষের স্বার্থেই সরকার দ্রুত বিরোধী নেতাদের এই চিঠির জবাব দেবে বলেই তাঁরা আশা করেন৷