জাতিসংঘকে মুসলমান নিধনকারী সংঘ বলে অভিযোগ করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

জাতিসংঘকে মুসলমান নিধনকারী সংঘ বলে অভিযোগ করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: জাতিসংঘকে মুসলমান নিধনকারী সংঘ বলে অভিযোগ করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির চরমোনাই পীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম। আজ মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার বাইতুল মোকাররম মসজিদের সামনে ভারতীয় দূতাবাসের অভিমুখে গণমিছিলপূর্ব সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই মন্তব্য করেন।

চরমোনাই পীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম বলেন, ‘আপনারা যারা তামাম দুনিয়া নিয়ন্ত্রণ করছেন, আজকে কি তারা চোখ বন্ধ করে বসে আছেন? আজকে ভারতের মুসলমানদের ওপর যে অত্যাচার-নির্যাতন আর হত্যাযজ্ঞ চালানো হচ্ছে, তা আপনারা লক্ষ্য করছেন না? আজকে জাতিসংঘের দায়িত্বশীল ব্যক্তিরা নিশ্চুপ হয়ে বসে আছেন। আমরা বলব, আপনারা জাতিসংঘ না, মুসলমান নিধনকারী সংঘ!’

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উদ্দেশে সমাবেশে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমির মুফতি ফয়জুল করিম বলেন, ‘ভারতে গো মাংসকে কেন্দ্র করে মুসলিমদের ওপর যে নির্যাতন ও হত্যার ঘটনা ঘটছে, তা রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় হচ্ছে। আমরা বাংলাদেশে সংখ্যাগরিষ্ঠ কিন্তু আমরা হিন্দুদের ওপর নির্যাতন করি না। এই হত্যাকাণ্ড বন্ধ করতে হবে। নতুবা মুসলিম বিশ্ব আপনাকে ছেড়ে কথা বলবে না।’

চরমোনাই পীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম বলেন, ‘ভারতে এতগুলো মুসলিমকে হত্যা করা হলো অথচ আমাদের সরকার একটা বিবৃতি পর্যন্ত দেয়নি। শুধু তাই না, এই হত্যার প্রতিবাদ করতে আমরা বাইতুল মোকাররমের দক্ষিণ গেটে অনুমতি চেয়েছিলাম কিন্তু দেয়নি। দিয়েছে উত্তর গেটের মতো ছোট স্থান। যাতে এই প্রতিবাদ আন্তর্জাতিক মিডিয়াতে না আসে। ধিক্কার জানাই, ধিক্কার। আমি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে অনুরোধ করে বলছি, রাষ্ট্রীয় পৃষ্টপোষকতায় মুসলিম হত্যা বন্ধ করুন। না হলে সারা বিশ্বকে সঙ্গে নিয়ে আমরা কঠোর অবস্থানে যাব।’

সমাবেশ শেষ হলে বাইতুল মোকাররম থেকে গণ মিছিল নিয়ে ভারতীয় দূতাবাস অভিমুখে স্মারকলিপি নিয়ে রওনা দেন সংগঠনটির নেতাকর্মীরা।