CAA বিরোধী আন্দোলনকারীদের আইনী সহায়তা দিতে যাওয়া আইনজীবীকে গ্রেফতার করে নির্যাতনের অভিযোগ উত্তরপ্রদেশে

CAA বিরোধী আন্দোলনকারীদের আইনী সহায়তা দিতে যাওয়া আইনজীবীকে গ্রেফতার করে নির্যাতনের অভিযোগ উত্তরপ্রদেশে

নিউজ ডেস্ক বঙ্গ রিপোর্ট: উত্তরপ্রদেশে সিএএ বিরোধ চলাকালীন বিরোধীদের আইন সাহায্য দিতে সেখানে গিয়েছিলেন রাজস্থানের কোটার আইনজীবী মহম্মদ ফয়জল। মিথ্যে অভিযোগে তাঁকে গ্রেফতার করে অত্যাচার করে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। একাধিকবার শক দেওয়া হয় তাঁকে, এমনটাই জানিয়েছেন তিনি।

সংবাদ মাধ্যমকে ফয়জল জানান, উত্তরপ্রদেশের শামলির কৈরানা আদালতে প্রতিবাদীদের আইনি সহযোগিতা করছিলেন তিনি। গত ২২ ডিসেম্বর, ২০১৯ বিকেল পাঁচটা নাগাদ সেখান থেকেই তাঁকে গ্রেফতার করে রাজ্যের এসওজি অর্থাৎ পুলিশের স্পেশাল অপরেশন গ্রুপ। এরপর কৈরানা থানায় তাঁকে নিয়ে যাওয়া হলে তিনি নিজের রাজস্থান বার কাউন্সিলের পরিচয়পত্র দেখান। পুলিশ দাবি করে, এই পরিচয়পত্র ভুয়ো। ‘পুলিশ দাবি করে, আমি নাকি বাংলার লোক, যে এখানে এসেছে হিংসা ছড়াতে,’ জানিয়েছেন ফয়জল, ‘আমাকে শারীরিক এবং মানসিকভাবে নির্যাতন করা হয়। কুরুচিকর মন্তব্য করা হয়। শুধু টাই নয়, একাধিকবার শকও দেওয়া হয় আমাকে।’

পপুলার ফ্রন্ট অফ ইন্ডিয়া (পিএফআই) নামক দলের সঙ্গে তিনি যুক্ত এবং তাদের হয়ে প্যামফ্লেট বিলি করছিলেন, এরকম অভিযোগ করেছে পুলিশ। ফয়জল জানান, এই দলের সঙ্গে তাঁর কোনও সংযোগ নেই। তিনি মানবাধিকার কমিশনের জাতীয় সংঘের (এনসিএইচআরও) সদস্য। সংঘের নির্দেশেই তিনি উত্তরপ্রদেশে এসেছিলেন আইনি সাহায্য দিতে। এরপর মামলা আদালতে উঠলে, তাঁকে ১৪ দিনের আইনি হেফাজতে রাখা হয়। ‘ডিসেম্বরের ২৪ তারিখ থেকে ৭ জানুয়ারি পর্যন্ত আমি জেলে ছিলাম’, জানালেন ফয়জল। উত্তরপ্রদেশ পুলিশের বিরুদ্ধে তিনি মামলা করবেন বলেও জানিয়েছেন।